আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
আন্তর্জাতিক

মুম্বাইয়ে পরিবারের ৪ সদস্যের আত্মহত্যা!

mumbai wmnওমেনঅাই: ভারতের মুম্বাই নগরীতে সম্প্রতি এক রহস্যজনক আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে আত্মহত্যা করেছেন এক পরিবারের চার সদস্যের সবাই। তারা সুইসাইড নোটের সঙ্গে পুলিশের জন্য ৫০ হাজার রুপি রেখে গেছেন বলে এনডিটিভি জানিয়েছেন।

সোমবার এনডিটিভি’তে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, শুক্রবার রাতে আন্ধেরির ওশিওয়ারা এলাকার এক ফ্ল্যাট থেকে ভারতী পাল(২৫) এবং তার ছোট ভাই সোমনাথ পালের(২০) মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। দুই ভাই-বোন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে। ওই বাড়িতে তারা দীর্ঘদিন ধরে হাউসকিপার হিসেবে কাজ করছিলেন।

এ ঘটনার পরদিন সকালে নগরীর লোখণ্ডওয়ালা এলাকায় নিজেদের বাড়িতে আত্মহত্যা করেন তাদের মা ‍শিখা পাল(৪৫) এবং সৎ বাবা মনোজ অজিতকুমার প্যাটেল(৫০)। তারা দুজনও গলায় ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে।

ভারতী এবং তার ভাই সোমনাথ কাজ করতেন তিনকু সিংয়ের বাড়িতে। ইংরেজিতে লেখা সুইসাইড নোটে এই আত্মহত্যার জন্য বাড়ির মালিককে অভিযুক্ত করেছেন ভারতী। তার অভিযোগ, তিনকু সিং ভারতীর ওপর যৌন নির্যাতন চালাতেন এবং তার ভাই সোমনাথকে নিয়মিত প্রহার করতেন। তার এ অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে দেখছে স্থানীয় পুলিশ।

এছাড়া ভারতীর মা, বাবা এবং ভাই পৃথক পৃথক সুইসাইড নোট রেখে গেছেন। এছাড়া অভিযোগের প্রমাণ হিসেবে ওইসব নোটের সঙ্গে মোবাইলে ধারণকৃত তিনটি ভিডিও রেখে গেছেন শিখা পাল।। ভারতীর মা শিখা পাল তার চিঠিতে লিখেছেন,‘আমার সন্তানরা ছিল আমার জীবন। তারা আত্মহত্যা করার পর আমি আর বেঁচে থাকতে চাই না।’

ভারতীর ভাই সোমনাথ সুইসাইড নোট বা চিঠিতে লিখেছেন, তাদের মালিক তার বোনের ওপর যৌন নিপীড়ণ চালাতেন এবং তাকে নিয়মিত মারধোর করতেন। তার সৎ পিতা তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ি নয় বলে লিখে গেছেন।

এদিকে তল্লাসির সময় ভারতীদের বাড়ির রান্নাঘরের এক কৌটা থেকে ৫০ হাজার রুপি খুঁজে পেয়েছে পুলিশ। এসব অর্থ তারা পুলিশের জন্য রেখে গেছেন বলে এক চিঠি থেকে জানা গেছে। এই অর্থ রহস্যজনক এ আত্মহত্যার ঘটনাগুলোকে আরো জটিল করে তুলেছে। এছাড়া এই অর্থ দিয়ে কী করবে তা ভেবে পাচ্ছে না পুলিশ।

এদিকে ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহগুলো আর এন কপার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মনোজ অজিতকুমার প্যাটেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে দেশে ছুটে এসেছেন তার এক আমেরিকা প্রবাসী ভাই। ওই ভাইয়ের হাতেই তুলে দেয়া হবে অজিদের লাশ। তবে বাকি তিনজনের মৃতদেহ তুলে দেয়ার জন্য ভারতীর স্বজনদের খোঁজ করছে পুলিশ।

এদিকে ভারতীর করা অভিযোগের ভিত্তিতে ৩৫ বছরের তিনকু সিংকে আটক করেছে পুলিশ। গত দশ বছরেরও বেশি সময় ধরে তার বাড়িতে কাজ করে আসছিলেন ওই দুই ভাই-বোন।ভারতের মুম্বাই নগরীতে সম্প্রতি এক রহস্যজনক আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে আত্মহত্যা করেছেন এক পরিবারের চার সদস্যের সবাই। তারা সুইসাইড নোটের সঙ্গে পুলিশের জন্য ৫০ হাজার রুপি রেখে গেছেন বলে এনডিটিভি জানিয়েছেন।

সোমবার এনডিটিভি’তে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, শুক্রবার রাতে আন্ধেরির ওশিওয়ারা এলাকার এক ফ্ল্যাট থেকে ভারতী পাল(২৫) এবং তার ছোট ভাই সোমনাথ পালের(২০) মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। দুই ভাই-বোন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে। ওই বাড়িতে তারা দীর্ঘদিন ধরে হাউসকিপার হিসেবে কাজ করছিলেন।

এ ঘটনার পরদিন সকালে নগরীর লোখণ্ডওয়ালা এলাকায় নিজেদের বাড়িতে আত্মহত্যা করেন তাদের মা ‍শিখা পাল(৪৫) এবং সৎ বাবা মনোজ অজিতকুমার প্যাটেল(৫০)। তারা দুজনও গলায় ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে।

ভারতী এবং তার ভাই সোমনাথ কাজ করতেন তিনকু সিংয়ের বাড়িতে। ইংরেজিতে লেখা সুইসাইড নোটে এই আত্মহত্যার জন্য বাড়ির মালিককে অভিযুক্ত করেছেন ভারতী। তার অভিযোগ, তিনকু সিং ভারতীর ওপর যৌন নির্যাতন চালাতেন এবং তার ভাই সোমনাথকে নিয়মিত প্রহার করতেন। তার এ অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে দেখছে স্থানীয় পুলিশ।

এছাড়া ভারতীর মা, বাবা এবং ভাই পৃথক পৃথক সুইসাইড নোট রেখে গেছেন। এছাড়া অভিযোগের প্রমাণ হিসেবে ওইসব নোটের সঙ্গে মোবাইলে ধারণকৃত তিনটি ভিডিও রেখে গেছেন শিখা পাল।। ভারতীর মা শিখা পাল তার চিঠিতে লিখেছেন,‘আমার সন্তানরা ছিল আমার জীবন। তারা আত্মহত্যা করার পর আমি আর বেঁচে থাকতে চাই না।’

ভারতীর ভাই সোমনাথ সুইসাইড নোট বা চিঠিতে লিখেছেন, তাদের মালিক তার বোনের ওপর যৌন নিপীড়ণ চালাতেন এবং তাকে নিয়মিত মারধোর করতেন। তার সৎ পিতা তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ি নয় বলে লিখে গেছেন।

এদিকে তল্লাসির সময় ভারতীদের বাড়ির রান্নাঘরের এক কৌটা থেকে ৫০ হাজার রুপি খুঁজে পেয়েছে পুলিশ। এসব অর্থ তারা পুলিশের জন্য রেখে গেছেন বলে এক চিঠি থেকে জানা গেছে। এই অর্থ রহস্যজনক এ আত্মহত্যার ঘটনাগুলোকে আরো জটিল করে তুলেছে। এছাড়া এই অর্থ দিয়ে কী করবে তা ভেবে পাচ্ছে না পুলিশ।

এদিকে ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহগুলো আর এন কপার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মনোজ অজিতকুমার প্যাটেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে দেশে ছুটে এসেছেন তার এক আমেরিকা প্রবাসী ভাই। ওই ভাইয়ের হাতেই তুলে দেয়া হবে অজিদের লাশ। তবে বাকি তিনজনের মৃতদেহ তুলে দেয়ার জন্য ভারতীর স্বজনদের খোঁজ করছে পুলিশ।

এদিকে ভারতীর করা অভিযোগের ভিত্তিতে ৩৫ বছরের তিনকু সিংকে আটক করেছে পুলিশ। গত দশ বছরেরও বেশি সময় ধরে তার বাড়িতে কাজ করে আসছিলেন ওই দুই ভাই-বোন।ভারতের মুম্বাই নগরীতে সম্প্রতি এক রহস্যজনক আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে আত্মহত্যা করেছেন এক পরিবারের চার সদস্যের সবাই। তারা সুইসাইড নোটের সঙ্গে পুলিশের জন্য ৫০ হাজার রুপি রেখে গেছেন বলে এনডিটিভি জানিয়েছেন।

সোমবার এনডিটিভি’তে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, শুক্রবার রাতে আন্ধেরির ওশিওয়ারা এলাকার এক ফ্ল্যাট থেকে ভারতী পাল(২৫) এবং তার ছোট ভাই সোমনাথ পালের(২০) মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। দুই ভাই-বোন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে। ওই বাড়িতে তারা দীর্ঘদিন ধরে হাউসকিপার হিসেবে কাজ করছিলেন।

এ ঘটনার পরদিন সকালে নগরীর লোখণ্ডওয়ালা এলাকায় নিজেদের বাড়িতে আত্মহত্যা করেন তাদের মা ‍শিখা পাল(৪৫) এবং সৎ বাবা মনোজ অজিতকুমার প্যাটেল(৫০)। তারা দুজনও গলায় ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে জানা গেছে।

ভারতী এবং তার ভাই সোমনাথ কাজ করতেন তিনকু সিংয়ের বাড়িতে। ইংরেজিতে লেখা সুইসাইড নোটে এই আত্মহত্যার জন্য বাড়ির মালিককে অভিযুক্ত করেছেন ভারতী। তার অভিযোগ, তিনকু সিং ভারতীর ওপর যৌন নির্যাতন চালাতেন এবং তার ভাই সোমনাথকে নিয়মিত প্রহার করতেন। তার এ অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে দেখছে স্থানীয় পুলিশ।

এছাড়া ভারতীর মা, বাবা এবং ভাই পৃথক পৃথক সুইসাইড নোট রেখে গেছেন। এছাড়া অভিযোগের প্রমাণ হিসেবে ওইসব নোটের সঙ্গে মোবাইলে ধারণকৃত তিনটি ভিডিও রেখে গেছেন শিখা পাল।। ভারতীর মা শিখা পাল তার চিঠিতে লিখেছেন,‘আমার সন্তানরা ছিল আমার জীবন। তারা আত্মহত্যা করার পর আমি আর বেঁচে থাকতে চাই না।’

ভারতীর ভাই সোমনাথ সুইসাইড নোট বা চিঠিতে লিখেছেন, তাদের মালিক তার বোনের ওপর যৌন নিপীড়ণ চালাতেন এবং তাকে নিয়মিত মারধোর করতেন। তার সৎ পিতা তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ি নয় বলে লিখে গেছেন।

এদিকে তল্লাসির সময় ভারতীদের বাড়ির রান্নাঘরের এক কৌটা থেকে ৫০ হাজার রুপি খুঁজে পেয়েছে পুলিশ। এসব অর্থ তারা পুলিশের জন্য রেখে গেছেন বলে এক চিঠি থেকে জানা গেছে। এই অর্থ রহস্যজনক এ আত্মহত্যার ঘটনাগুলোকে আরো জটিল করে তুলেছে। এছাড়া এই অর্থ দিয়ে কী করবে তা ভেবে পাচ্ছে না পুলিশ।

এদিকে ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহগুলো আর এন কপার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মনোজ অজিতকুমার প্যাটেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে দেশে ছুটে এসেছেন তার এক আমেরিকা প্রবাসী ভাই। ওই ভাইয়ের হাতেই তুলে দেয়া হবে অজিদের লাশ। তবে বাকি তিনজনের মৃতদেহ তুলে দেয়ার জন্য ভারতীর স্বজনদের খোঁজ করছে পুলিশ।

এদিকে ভারতীর করা অভিযোগের ভিত্তিতে ৩৫ বছরের তিনকু সিংকে আটক করেছে পুলিশ। গত দশ বছরেরও বেশি সময় ধরে তার বাড়িতে কাজ করে আসছিলেন ওই দুই ভাই-বোন।

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারি (ওমেনআই)/এসএল/

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close