আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
রান্নাঘরলাইফ স্টাইল

গুণে ভরা পাকা তাল

ওমেনআই ডেস্ক : প্রকৃতিতে এখন চলছে ভাদ্র মাস। কথায় বলে ভাদ্র মাসের গরমে তাল পাকে। আবার এই ভাদ্রের গরমেই পাকা তাল খেতেই হয়। ভাদ্র মাসে পাকা তালের মৌ মৌ গন্ধে মুখরিত হওয়ার সময়। ইতোমধ্যে বাজারে পাকা তাল চলে এসেছে। পাকা তালের রস থেকে নানা ধরনের পিঠা-পায়েস তৈরি হয়। তালের মধ্যে থাকা বিভিন্ন খনিজ উপাদান ও পুষ্টিগুণ আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী।

তালের পুষ্টিগুণ : পাকা তালের খাদ্যপযোগী প্রতি ১০০ গ্রামে জলীয় অংশ ৭৭.২ গ্রাম, খনিজ০.৭ গ্রাম, আঁশ ০.৫ গ্রাম, আমিষ ০.৭ গ্রাম, চর্বি ০.২ গ্রাম শর্করা ২০.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৯ মিলিগ্রাম ও খাদ্য শক্তি ৮৭ কিলোক্যালরী রয়েছে। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য নিবারণ করে। রস থেকে তৈরি তালমিশ্রি সর্দি কাশির মহাওষুধ, যকৃতের দোষ নিবারক ও পিত্তনাশক।

তালের উপকারিতা : পাকা তালের রস দিয়ে নানা ধরনের পিঠা, গুড়, মিশ্রি, ইত্যাদি তৈরি করা যায়। আজকাল তাল দিয়ে জিলাপি, রসমালাই, রোল, পুলি পিঠা, তালের বড়া ইত্যাদিও তৈরি করতে দেখা যায়।

পাকা তালের উপকারিতা : সদ্য আহরিত তালের রস পানীয়। তাল অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট গুণসমৃদ্ধ হওয়ায় ক্যানসার প্রতিরোধে সক্ষম। তাল-দুধ, তাল-মুড়ি, আঁটির ভেতরের সাদা শাঁস খুবই মুখরোচক খাবার। এসব খাবার খেলেও মুখের রুচি বাড়ে। হজমও হয় ভাল। পাকা তালের রস কনফেকশনারীতে শুকনো খাবার প্রস্তুত করনের উপাদান হিসেবে ব্যবহার করা হয়। স্মৃতিশক্তি ভালো রাখতে সাহায্য করে।

এ ছাড়া স্বাস্থ্য রক্ষায়ও তাল ভূমিকা রাখে। তাল ভিটামিন বি-এর আধার। তাই ভিটামিন বি-এর অভাবজনিত রোগ প্রতিরোধে তাল ভূমিকা রাখে। তালে প্রচুর ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস আছে, যা দাঁত ও হাড়ের ক্ষয় প্রতিরোধে সহায়ক কোষ্ঠকাঠিন্য ও অন্ত্রের রোগ ভালো করতে তাল ভালো ভূমিকা রাখে।

সা/১১/৯/২০.৪৪

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close