আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
সারাদেশস্লাইড

যৌতুক না পেয়ে শ্বশুর-শাশুড়ি, স্ত্রীসহ পাঁচ জনকে কুপিয়ে আহত

ওমেনআই ডেস্ক : টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে উপজেলায় যৌতুকের টাকা না পেয়ে শ্বশুর-শাশুড়ি, স্ত্রী, স্ত্রীর বড় বোন ও তার তিন বছরের এক সন্তানকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে স্বপন মিয়া (২৫) নামে মাদকাসক্ত এক ব্যক্তি।

গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে উপজেলার মহেড়া ইউনিয়নের স্বল্প মহেড়া তালুকদারপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী স্বপনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

আহতরা হলেন— মহেড়া গ্রামের মৃত হবি মিয়ার ছেলে সিরাজ মিয়া (৬০), তার স্ত্রী সূর্যভানু বেগম (৫২), মেয়ে শিলা আক্তার (১৮), শিলার বড় বোন রাজিয়া বেগম (২৫) ও রাজিয়ার শিশুকন্যা তাইবা (৩)। তাদের টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে নেয়া হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, মাস চারেক আগে মহেড়া গ্রামের সিরাজ মিয়ার মেয়ে শিলা আক্তারের সঙ্গে একই উপজেলার জামুর্কী ইউনিয়নের পূর্ব গোড়ান গ্রামের আতোয়ার হোসেনের ছেলে স্বপন মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবিতে স্বপন স্ত্রী শিলাকে মারপিট ও নানাভাবে নির্যাতন শুরু করে। শিলা বিষয়টি বাবা-মাকে জানায়। স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে কয়েকদিন আগে শিলা বাবার বাড়ি মহেড়া গ্রামে চলে আসেন।

শিলা গত বুধবার ঘটনাটি মহেড়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. বাদশা মিয়াকে জানান। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্বপন চাকু ও দা নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে আসেন। রাত সাড়ে সাতটার দিকে বাড়ির লোকজন কিছু বুঝে ওঠার আগেই স্বপন ঘরে তালা দিয়ে শ্বশুর সিরাজ মিয়া, শাশুড়ি সূর্যভানু বেগম, স্ত্রী শিলা আক্তার, স্ত্রীর বড় বোন রাজিয়া বেগম ও তার তিন বছরের শিশুকন্যা তাইবাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে।

পরে আশপাশের বাড়ির লোকজন এসে দরজা ভেঙে তাদের উদ্ধার করে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে পাঠায়। এ সময় উত্তেজিত গ্রামবাসী স্বপনকে গণধোলাই দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে গ্রেফতার করে।

জানা যায়, স্বপন বিয়ের আগে মরিশাস ও সৌদি আরব থাকতেন। তার বাবা আতোয়ার হোসেনও কোরিয়া ও সৌদি আরব থাকতেন। ছোট ভাই ইমনও সৌদি প্রবাসী। বিদেশ থেকে এসে স্বপন শিলাকে বিয়ে করেন। এর আগেও স্বপন আরেকটি বিয়ে করেছিলেন।

প্রথম স্ত্রী ডিভোর্স দিয়ে চলে যাওয়ার পর তা গোপন রেখে স্বপন শিলাকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এ বিষয়টি নিয়েও তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো বলে গোড়ান ও মহেড়া গ্রামের লোকজন জানিয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সায়েদুর রহমান। তিনি বলেন, স্বপন মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মা/১৮/৯/১৪.২৯

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close