আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
অন্যান্য

পদার্থবিদ্যায় নোবেল পুরস্কার জিতলেন ৩ বিজ্ঞানী

ওমেনআই ডেস্ক : ব্ল্যাকহোল এবং ছায়াপথ নিয়ে গবেষণাকে স্বীকৃতি দিলো নোবেল কমিটি। এ সংক্রান্ত গবেষণার জন্য পদার্থবিদ্যায় এ বছরের নোবেল পেলেন যুক্তরাজ্যের রজার পেনরোজ, জার্মানির রেইনহার্ড গ্যাঞ্জেল এবং যুক্তরাষ্ট্রের আন্দ্রে গেজ। আগামী ১০ ডিসেম্বর সুইডেনের স্টকহোমে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের হাতে পুরস্কার তুলে নোবেল কমিটি।

একশো বছর আগে আপেক্ষিক তত্ত্বে ব্ল্যাক হোলসের ধারণা দিয়েছিলেন আইনস্টাইন। যদিও ব্ল্যাকহোলের অস্তিত্ব নিয়ে নিজেও সন্দিহান ছিলেন তিনি। তাঁর জেনারেল থিওরি অফ রিলেটিভিটিতে আইনস্টাইন বলেছেন, এই দৈত্যাকার গহ্বর সবকিছুকেই গিলে খায়, এমনকি আলো পর্যন্ত।

আইনস্টাইনের মৃত্যুর দশ বছর পর, ১৯৬৫ সালে গানিতিকভাবে সেই তত্ত্বকে প্রমাণ করেন ব্রিটিশ গাণিতিক পদার্থবিজ্ঞানী রজার পেনরোজ। তিনি দেখিয়েছেন, ব্ল্যাকহোলের কাছে প্রাকৃতিক সব সূত্র হার মেনেছে। ছায়াপথের সবকিছুই ছুটে চলছে ব্ল্যাকহোলের কেন্দ্রের দিকে।

জ্যোতির্বিজ্ঞানী রেইনহার্ড গ্যাঞ্জেল এবং আন্দ্রে গেজ টেলিস্কোপের সাহায্যে ছায়াপথের কেন্দ্রে গ্যাস ও ধূলার আবরণের মধ্যে কিছু নক্ষত্রের অস্পষ্ট নড়াচড়া লক্ষ্য করেন । দুই বিজ্ঞানী দীর্ঘ গবেষণায় এমন একটি যন্ত্র আবিষ্কার করেন, যার মাধ্যমে এই মহাজাগতিক কার্যক্রম সুস্পষ্টভাবে পর্যবেক্ষণ করা সম্ভব। এতে তারা দেখেন, সূর্যের চেয়ে চল্লিশ লাখ গুণ বড় গহ্বরে হারিয়ে যাচ্ছে ছায়াপথের সবকিছু।

রয়্যাল সুইডিশ একডেমি অব সায়েন্সেসের সেক্রেটারি জেনারেল গোরান কে হ্যানসন বলেন, সাধারণ আপেক্ষিকতা তত্ত্বের ভবিষ্যদ্বাণী বলিষ্ঠকরণে ব্ল্যাকহোলের গঠন অবিষ্কারের জন্য রজার পেনরোজকে নোবেলের অর্ধেক দেওয়া হয়েছে এবং আমাদের ছায়াপথের কেন্দ্রে একটি সুপারম্যাসিভ কমপ্যাক্ট অবজেক্টের আবিষ্কারের জন্য রেইনহার্ড গেঞ্জেল এবং আন্দ্রে গেজ পেয়েছেন পুরস্কারের বাকি অর্ধেক।

নোবেল পুরস্কারের এক কোটি সুইডিশ ক্রোনারের মধ্যে অর্ধেক পাবেন পেনরোজ। বাকি অর্ধেক ভাগ করে নেবেন গেনসেল ও গেজ।

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close