আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
লাইফ স্টাইল

এবার আম পাকবে বিষমুক্ত উপায়ে!

aam-2ওমেনআই: পাকা আমের মধুর রসে ডুব দিতে চাই মন, হারাতে চাই স্বাদের ভুবনে। অপরদিকে আমের পুষ্টিগুণ শরীরকে রাখে নানা রোগব্যধি থেকে মুক্ত। অথচ সেই আমই আপনার জন্য হতে পারে প্রাণহানির কারণ। বাজারে টসটসে যেসব আম পাওয়া যায় তার প্রায় সবই কার্বাইড নামক বিষ প্রয়োগ করে পাকানো হয়।

ক্যালসিয়াম কার্বাইড প্রধানত আর্সেনিক ও ফসফরাসের যৌগ উপাদান। এ দুটি উপাদান মানুষের শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। ক্যালসিয়াম কার্বাইড দিয়ে অনিয়মতান্ত্রিক উপায়ে পাকানো ফল খেলে নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। কার্বাইড থেকে উৎপন্ন অ্যাসিটিলিন গ্যাস দেহের স্নায়ুতন্ত্রের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলে। এটি দেহে অক্সিজেনের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। রোগের প্রাথমিক অবস্থায় বমি হওয়া, চুলকানি, ডায়রিয়া, পেটের পীড়া, বুক জ্বালাপোড়া, ঘন ঘন তৃষ্ণা পাওয়া এবং কথা বলতে অসুবিধা হয়। দীর্ঘ দিন এ উপাদান দিয়ে পাকানো ফল খেলে হাত-পা অবশ হয়ে যেতে পারে, গলব্লাডারে ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা থাকে এবং রক্তচাপ কমে যেতে পারে।

তাই বলে মধুমাস আম না খেয়ে পার হবে? মোটেও না। চলুন জেনে নিই কার্বাইড ছাড়া ঘরোয়া পদ্ধতিতে আম পাকানোর সহজ পদ্ধতি।

প্রথমে কাঁচা আমগুলোকে বাছাই করে নিতে হবে। এবার একটি কাগজের ব্যাগে ভরে নিন। আমগুলো খবরের কাগজ দিয়েও মুড়ে নিতে পারেন। দশটি আমের জন্য ব্যাগের ভেতর একটি আপেল অথবা একটি কলা বা একটি টমেটো রেখে দিন। কাগজের ব্যাগের মুখটি ভালোকরে বেঁধে দিতে হবে। আপেল থেকে নির্গত ইথিলিন গ্যাস আম গুলোকে দ্রুত পাকাতে সাহায্য করবে। আম ভর্তি ব্যাগটি রান্না ঘরে বা বাসার গরম কোনো স্থানে রেখে দিতে পারেন। ১ থেকে ২ দিনের মধ্যেই ব্যাগ থেকে পাকা আমের মিষ্টি ঘ্রাণ বের হতে থাকবে।

ঢাকা, ৯ মে (ওমেনঅাই)/এসএল/

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close