আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
লাইফ স্টাইল

বাড়িয়ে তুলুন ইচ্ছাশক্তি

iccaওমেনআই:কারো ইচ্ছাশক্তি আরো মজবুত করার কোনো উপায় আছে কি? গবেষণাগারে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন মানুষের ইচ্ছাশক্তিও মাংসপেশির মতো; যা অতিব্যবহারে ক্লান্ত হয়ে পড়ে এবং একে পুনরুজ্জীবিত করার জন্য নতুন করে খাবারের দরকার হয়। ব্যায়াম করে শরীরের যে কোনো মাংসপেশি যেমন মজবুত করা যায় তেমনি ইচ্ছাশক্তিকেও মজবুত করার উপায় আছে।

১. প্রতিদিন ১০মিনিট করে মেডিটেশন করুন: ইচ্ছাশক্তিকে মজবুত করার ক্ষেত্রে মেডিটেশনে আপনি সবচেয়ে দ্রুততম ফল পাবেন। এর মাধ্যমে মূলত মস্তিষ্ককে কোনো একটি বিষয়ে কী করে পুরো মনোযোগ দেওয়া এবং সেসময় অন্য চিন্তার মস্তিষ্কে প্রবেশ ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব তার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। গবেষণায় দেখা গেছে, মাত্র ২-৩ দিন ১০ মিনিট করে মেডিটেশন করলেই আপনার মস্তিষ্ক কোনো বিষয়ে পুরোপুরি মনোযোগ দিয়ে চিন্তা করতে সক্ষম হবে। আপনার মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বেড়ে যাবে এবং আপনি কম ক্লান্ত-পরিশ্রান্ত হবেন।

২. অঙ্গভঙ্গি ঠিক রাখুন: সব অবস্থায় টানটান অঙ্গভঙ্গি বজায় রাখার চেষ্টা করুন। কখনোই জুবুথুবু হয়ে থাকবেন না। শুনতে খুব সহজ মনে হলেও এ কাজটি করার জন্যও যথেষ্ট ইচ্ছাশক্তি দরাকার!

৩. খাবারের ডায়েরি রাখুন: গবেষণায় দেখা গেছে যারা খাবারের ডায়েরি রাখেন তাদের ইচ্ছাশক্তির উন্নতি ঘটে। মাত্র দুই সপ্তাহ খাদ্য ও পুষ্টি সংক্রান্ত ডায়েরি রাখলে ক্ষতিকর খাবারের প্রতি আপনি আপনার লোভ সংবরন করতে পারবেন। আর লোভ সংবরনের ক্ষমতা অর্জনের মধ্য দিয়ে যে কোনো বিষয়ে আপনার ইচ্ছাশক্তি আরো মজবুত হবে।

৪. দুটো হাতই সমানভাবে ব্যবহারের চেষ্টা করুন: যারা ডানহাতি তারা সাধারণত সব কাজে ডান হাতই বেশি ব্যবহার করেন। আবার যারা বামহাতি তারা বাম হাতই বেশি ব্যবহার করেন। মস্তিষ্কও বিষয়টিতে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। ফলে বিপরীত হাতটি ব্যবহার করার জন্য যথেষ্ট ইচ্ছাশক্তির দরকার পড়ে। প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট সময় ধরে বিপরীত হাতটিকেও কাজে লাগানোর চর্চা করুন। ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি- মাত্র এক ঘন্টার প্র্র্যাকটিসেই আপনার ইচ্ছা শক্তি যে কোনো ব্যাপারে আরো মজবুত হয়ে উঠবে।

৫. মুখের ভাষা পরিবর্তন করুন: সাধারণত যেসব শব্দে আপনি মনের ভাব প্রকাশ করতে অভ্যস্ত তার বদলে অন্য শব্দে মনের ভাব প্রকাশ করুন। যেমন ‘হেই’ বলার পরিবর্তে ‘হ্যালো’ বলার চেষ্টা করুন। শুরুতে প্রতিদিন একটি নির্দষ্ট সময়ে এই ভাষা পরিবর্তনের প্র্যাকটিস করুন। দীর্ঘ দিনের অভ্যাসের বাইরে যাওয়ার জন্যও যথেষ্ট ইচ্ছাশক্তির দরকার। তবে মাত্র দুই সপ্তাহ এই প্র্যাকটিসটি করলে আপনার ইচ্ছাশক্তি অবিশ্বাস্যরকম মজবুত হয়ে উঠবে।

৬. নিজেই নিজের জন্য কোনো কাজের নির্দষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করে সে মোতাবেক তা সম্পন্ন করার চেষ্টা করুন: কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় কোনো বিশেষ অ্যাসাইনমেন্ট নির্দিষ্ট সময়সীমার একেবারে শেষপ্রান্তে গিয়ে তড়িঘড়ি করে সম্পন্ন করার অভিজ্ঞতা নিশ্চয়ই আপনার আছে। কিন্তু অল্প সময়ে বেশি কাজ করার এই অভ্যাস আপনার ইচ্ছাশক্তিকে পর্যায়ক্রমে দূর্বল করে ফেলে। সূতরাং কোনো কাজ করার আগে নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করে তার মধ্যেই কাজটি সম্পন্ন করার চেষ্টা করুন। গবেষণায় দেখা গেছে যারা মাত্র দুই সপ্তাহ এই প্র্যাকটিসটি করেছেন তাদের খাদ্যাভ্যাসে উন্নতি ঘটেছে, ব্যায়াম করার হার বেড়েছে, সিগারেট ও মদপানের হার নিয়ন্ত্রিত করতে সক্ষম হয়েছেন।

৭. ব্যয়ের হিসাব রাখুন: যেমন করে আমরা আমাদের খাদ্য ও পুষ্টি গ্রহণের কোনো হিসেব রাখিনা তেমনি দৈনন্দিন খরচেরও কোনো হিসেব রাখি না। খরচের পরিমাণ না কমিয়েও আপনি যদি শুধু কোথায় কত খরচ করছেন তার হিসেবে রাখেন তাতেই আপনার ইচ্ছাশক্তি আগের চেয়েও মজবুত হয়ে উঠবে। শুধুমাত্র দৈনন্দিন খরচের খাতগুলো পর্যালোচনা করার অভ্যাস গড়ে তুললেই আপনি দেখতে পাবেন যে কোনো বিষয়ে পুরোপুরি মনোযোগ ঢেলে দেওয়ার ক্ষেত্রে আপনার মানসিক সক্ষমতা বেড়ে গেছে।

৮. হ্যান্ডগ্রিপ চেপে ব্যায়াম করুন: হ্যান্ডগ্রিপ চেপে ব্যায়াম করার অভিজ্ঞতা যাদের আছে তারা জানেন যে এর জন্যও যথেষ্ট মজবুত ইচ্ছাশক্তির দরকার হয়। নিয়মিত হ্যান্ডগ্রিপ চেপে ব্যায়াম করলে যে কোনো চ্যালেঞ্জিং কাজে লেগে থাকার ক্ষেত্রেও আপনি আরো মজবুত ইচ্ছাশক্তি অর্জন করেত পারবেন।

৯. লোভনীয় কিছু সাথে নিয়ে ঘুরুন কিন্তু সেটিকে না বলুন: লোভনীয় কোনো কিছু পাওয়ার পরও সেটি ত্যাগ করার মতো যথেষ্ট ইচ্ছাশক্তি অর্জন করার ক্ষমতা অর্জন করুন। এজন্য আপনি নিজেই কোনো লোভনীয় বস্তু সঙ্গে নিয়ে ঘুরুন। সেটি হতে পারে কোনো খাদ্য। কিন্তু সেটির প্রতি নিজের লোভ সংবরনের প্র্যাকটিস করুন। প্রতিদিনই এমন কোনো লোভনীয় বস্তু সঙ্গে রেখে সেটির প্রতি লোভ সংবরনের এই চর্চাটি অব্যাহত রাখুন। এতে একটা সময়ে গিয়ে দেখবেন আপনি যে কোনো কিছুর প্রতিই না বলার মতো ইচ্ছাশক্তি বা মানসিক সক্ষমতা অর্জন করেছেন। এতে কোনো বিষয়ের প্রতি পুরোপুরি মনোযোগ নিবদ্ধ করার ক্ষেত্রে আপনার মানসিক দক্ষতাও বেড়ে যাবে এবং মনোযোগ নষ্ট করে এমন জিনিসের প্রতি উদাসীন থাকার ক্ষমতাও অর্জন করতে পারবেন।

১০. স্বয়ংক্রিয় সিদ্ধান্তগুলোর ব্যাপারে আরো সচেতন হোন: আপনি আপনার প্রতিদিনকার স্বয়ংক্রিয় সিদ্ধান্তগুলোর ব্যাপারে আরো সচেতন হোন। আমরা প্রায়ই চিন্তায় এতোটা মগ্ন হয়ে যাই যে আমাদের তৎপরতাগুলো সব স্বয়ংক্রিয় হয়ে যায়। কিন্তু এখন থেকে যদি আপনি কোনো তৎপরতায় লিপ্ত হওয়ার আগে ভালো করে ভেবে-চিন্তে কাজ করার চর্চা শুরু করেন তাহলে কোনো বিষয়ে পুরোপুরি মনোযোগ নিবদ্ধ করার ব্যাপারেও আপনার মানসিক ক্ষমতা বেড়ে যাবে। এতে আপনার লোভ সংবরনের ক্ষমতাও বাড়বে। এ ক্ষেত্রে নিজেকে আপনি আপনার প্রতিদিনকার ছোটখাটো অভ্যাসগুলোর ব্যাপারে প্রশ্ন করার মাধ্যমে এই চর্চাটি শুরু করতে পারেন। যেমন সকালের নাস্তায় আপনি প্রতিদিনই কেন ডিম খান নিজেকে প্রশ্ন করুন এবং তা পরিবর্তনের চেষ্টা করুন। এর মধ্য দিয়ে আপনি আত্মনিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে পারবেন।

তবে, সাবধান! উপরের সবগুলো চর্চা একই সময়ে করার চেষ্টা করবেন না। আপনার জন্য উপযোগী যে কোনো একটি বেছে নিয়ে সেটি দিয়েই প্র্যাকটিস শুরু করুন। তাহলেই শুধুমাত্র ইতিবাচক ফল পাবেন।

ঢাকা, ১১ মে (ওমেনঅাই)/এসএল/

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close