আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
অপরাধ

টেক্সাসে কৃষ্ণাঙ্গ তরুণীকে পুলিশের টানাহেঁচড়া

McKinney-2ওমেনআই:যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে এক কৃষ্ণাঙ্গ তরুণীর ওপর নির্যাতনের ঘটনায় এক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। রাজ্যের ম্যাকিনি শহরে সুইমিং পুল পার্টিতে পুলিশি হামলার ভিডিও প্রকাশের পর ব্যাপক সমালোচনা ও নিন্দার মুখে তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। তবে এই পদক্ষেপ যথেষ্ট নয় বলে দাবি করেছেন ওই নির্যাতীতা কিশোরী।

সংবাদ মাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, শহর জুড়ে বিক্ষোভের পর মঙ্গলবার সকালে ৪১ বছরের এরিক কেসবোল্টকে বরখাস্ত করেছে মার্কিন পুলিশ। তবে পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন, পত্র পত্রিকা এবং সামাজিক মাধ্যমে সমালোচনার মুখে এরিক স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছেন।

সাত মিনিটের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, ১৫ বছরের কৃষ্ণাঙ্গ কিশোরী ডাজেরিয়া বেকনকে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে আসছেন শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কেসবোল্ট। এরপর তাকে মাটিতে ফেলে নিজের দুই হাঁটু দিয়ে চেপে ধরেছেন। ওই পুলিশকর্মী অবশ্য তাতেও ক্ষান্ত হননি। পার্টির আরও বেশ কয়েক জন কৃষ্ণাঙ্গকে হেনস্থা করেন তিনি। শুক্রবার টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের ম্যাকিনি শহরে এক কমিউনিটি পুল পার্টিতে এই পুলিশি হামলার ঘটনা ঘটে।

পুলিশের এই দুর্ব্যবহারের দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি করে ইউ-টিউবে ছড়িয়ে দিয়েছে পার্টিতে উপস্থিত ১৫ বছরের ব্র্যান্ডন ব্রুকস। ভিডিও ছড়িয়ে পড়তেই তোলপাড় শুরু হয়েছে ইন্টারনেট। যার জের ধরে পদত্যাগ করতে বাধ্য হলেন অভিযুক্ত পুলিশকর্মী এরিক কেসবোল্ট। এরিক অবশ্য দাবি করেছেন, তাঁর সঙ্গে অকারণে দুর্ব্যবহার করেছিল ওই কিশোরী। তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন তিনি। তবে তিনি বেছে বেছে কেন কৃষ্ণাঙ্গদেরই আক্রমণ করেছিলেন এর কোনো ব্যাখ্যা দেননি এরিক।

এদিকে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘটনার সমালোচনা করেছেন ম্যাকিনির পুলিশ প্রধান গ্রগ কোনলে। তিনি কেসবোল্টের অপরাধকে ‘অমার্জনীয়’ বলেও উল্লেখ করেছেন। শুক্রবারের ওই ঘটনাটি তদন্তাধীন রয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

তবে পুলিশের হাতে লাঞ্ছিত ডাজেরিয়া বেকন জানিয়েছেন, ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করাটাই যথেষ্ট নয়।b03y3an7কৃষ্ণাঙ্গদের লক্ষ্য করে এই পুলিশি জুলুমের ভিডিও প্রকাশিত হওয়ার পরে স্বাভাবিক ভাবেই মার্কিন পুলিশের বিরুদ্ধে ফের বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ ওঠেছে। এই শারীরিক নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং দায়ি পুলিশের পদত্যাগের দাবিতে সোমবার ম্যাকিনি শহরে বিক্ষোভ করেছে আট শতাধিক মানুষ। স্কুল থেকে ওই সুইমিং পুল পর্যন্ত মিছিল করে। তাদের হাতে শোভা পাচ্ছিল বিভিন্ন বর্ণবাদ বিরোধী প্লাকার্ড। এ ঘটনায় মার্কিন বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছেন শহরের নাগরিক অধিকারের নেতারা।

ঢাকা, ১০ জুন (ওমেনআই)//এসএল//

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close