আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
উদ্যোক্তা

হবিগঞ্জের নারীদের সচ্ছলতা এনে দিয়েছে ‘চাই’

Chai1438247165ওমেনঅাই:‘চাই’ হচ্ছে মাছ শিকারের খাঁচা। যা তৈরি হয় বাঁশের উপকরণ দিয়ে। খাল-বিল ডোবা-নালায় পানি প্রবাহের উৎসমুখে পেতে মাছ শিকার করা হয়। বিশেষ করে ‘চাই’ দিয়ে মাছ শিকারের প্রকৃত মৌসুম হচ্ছে বর্ষাকাল। এ সময় খাল-বিল-হাওরের পানির উৎসগুলো প্রবহমান থাকে। ফলে বর্ষাকালে হবিগঞ্জে মাছ শিকারে ‘চাই’ এর চাহিদাও প্রচুর।

সে চাহিদার কারণে অনেককেই ‘চাই’ তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করতে দেখা যায়। হবিগঞ্জের হাওর এলাকায় অনেক অসহায় নারীই ‘চাই’ তৈরিকে কর্মসংস্থানের পথ হিসাবে বেছে নিয়েছেন। এসব অসহায় নারীদের আর্থিকভাবে সহায়তায় পাশ দাঁড়িয়েছেন হবিগঞ্জ-সিলেট জেলা মহিলা আসনের এমপি এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী।

তিনি বাহুবলের শংকরপুর নারী উন্নয়ন সমিতিকে ‘চাই’ নির্মাণে আর্থিক বরাদ্দ দিয়েছেন। এই বরাদ্দ পেয়ে এখানে ২৫ নারী একত্র হয়ে দিনরাত শ্রম দিয়ে ‘চাই’ তৈরি করছেন। এসব ‘চাই’ দেশের নানাস্থানে বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে পাইকাররা এখান থেকে নিয়ে মৎস্য প্রধান এলাকায় বিক্রি করছেন। ‘চাই’ তৈরির অর্থে এসব নারী সচ্ছল জীবনযাপন করছেন।

শংকরপুর গেলে দেখা যায়, বাড়ির আঙ্গিনায় নারীরা ‘চাই’ তৈরিতে ব্যস্ত। তাদের থেকে শিখছেন অন্য অসহায় নারীরাও। কেউবা ঘন্টাখানেক সময়ে একটি ‘চাই’ বানিয়ে ফেলছেন। কেউবা আবার সময় বেশি নিচ্ছেন।

আলাপকালে পাইকার মনু মিয়া বলেন, ‘এখানের তৈরি প্রতিটি ‘চাই’ ১০০ টাকার ভেতরেই ক্রয় করে নিয়ে বিক্রি করছি। বর্ষায় ‘চাই’এর চাহিদা বেশি।’

রীতা রানী, অসকা রানী, প্রিয়দা রানী জানান, বেকার সমস্যা কাটিয়ে কর্মমুখী হতে তারা ২৫ নারী মিলে ‘শংকরপুর নারী উন্নয়ন সমিতি’ গঠন করে ‘চাই’ তৈরি শুরু করেন। কিন্তু অর্থের অভাবে এগোতে পারছিলেন না। অবশেষে এমপি কেয়া চৌধুরী তাদের আর্থিক সহায়তা দেন। তারা জানান, এখন পুরোদমে ‘চাই’ তৈরি করে বিক্রি করছেন। ভালই আয় হচ্ছে।

তারা আরও জানান, তাদের নারী উন্নয়ন সমিতি দেখে অন্যগ্রামগুলোতেও নারী উন্নয়ন সমিতি গঠন হচ্ছে। তারাও বেকার নারীদের কর্মমুখী করতে কাজ করছেন।

জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আব্দুর রশিদ বলেন, ‘হাওরের বেকার সমস্যা রোধে বেকার নারী-পুরুষদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে। এতে তারা নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পারছে।’

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আফরাফ উদ্দিন আহম্মদ বলেন, ‘বাঁশ দিয়ে ‘চাই’ তৈরির মাধ্যমে হাওরের বেকার নারীরা কর্মসংস্থান বের করেছেন। আমাদের পক্ষ থেকে তাদের নানাভাবে সহায়তা করা হচ্ছে।’

ঢাকা, ০৪ েসপ্টেম্বর (ওমেনঅাই)//এসএল//

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close