আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
নারী সংগঠনস্পট লাইট

সেরা ১০ নারীকে অনন্যার পুরস্কৃার

ana_83081_0ওমেনঅাই: সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ দেশের সেরা ১০ জন নারীকে অনন্যা শীর্ষ দশ পুরস্কার দিয়েছে পাক্ষিক অনন্যা।

আজ শনিবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে এক আড়ম্বর আয়োজনে এ পুরস্কার দেয়া হয়।

অনন্যা শীর্ষ দশ সম্মাননা ২০১৪ সম্মাননা পেলেন, ভাষা সৈনিক অধ্যাপক লায়লা নূর, বাংলাদেশের প্রথম নারী উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম, বুয়েটের প্রথম নারী উপাচার্য প্রফেসর খালেদা একরাম, রাজনীতিক মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, চিকিৎসায় ডা. তাহমিনা বানু, সমাজকর্মী রোকসানা সুলতানা, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ, চিত্রশিল্পী নাজিয়া আন্দালিব প্রিমা, দেশের প্রথম নারী সামরিক বৈমানিক ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট নাইমা হক এবং ফ্লাইং অফিসার তামান্না-ই-লুৎফা এবং বাংলাদেশ প্রমিলা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন পেলেন। এছাড়াও সাংবাদিকতায় অনন্য অবদানের জন্য এবছর প্রথম বারের মতো ‘অনন্যা লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড ২০১৪’ পেলেন সাংবাদিক ও লেখক দিল মনোয়ারা মনু।

পাক্ষিক অনন্যার আয়োজনে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আজ দেশের এই কীর্তিমান নারীদের সম্মাননা জানানো হয়। অনন্যা সম্পাদক তাসমিমা হোসেনের পরিচালনায় এ মিলনমেলায় অন্যান্যের মধ্যে যোগ দেন ১৯৯৩ সাল থেকে বিভিন্ন সময়ে অনন্যা শীর্ষ দশ সম্মাননা প্রাপ্ত দেশের প্রতিথযশা, শিক্ষাবিদ, রাজনীতিক, সমাজসেবি, সাংবাদিক, বৈমানিক, আইনজীবী, ব্যবসায়ী, চিকিৎসক, শিল্পী, ক্রিড়াবিদরা। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদিক, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা গীতিআরা সাফিয়া চৌধুরী এবং চট্টগ্রাম উইমেন চেম্বারের সভাপতি মনোয়ারা হাকিম অনন্যা নারীদের উত্তরীয়, ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদ প্রদান করেন।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদিক নারীর বর্তমান অগ্রযাত্রাকে উৎসাহব্যঞ্জক বলে উল্লেখ করে বলেন, বর্তমানে নারীরা সব পেশায় সাহসিকতার সাথে কাজ করছে। বিশেষ করে সাংবাদিকতায় নারীদের অগ্রযাত্রা আমাকে উৎসাহিত করে। কিন্তু আমাদের যাত্রা কেবল শুরু। আমাদের যেতে হবে অনেক দূর। আমাদের সাথে নিতে হবে গ্রামীণ নারীদের। তাদের সচেতন করে, অনুপ্রেরণা ও সাহস দিয়ে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

অনন্যা শীর্ষ দশ সম্মাননা প্রাপ্তির প্রতিক্রিয়ায় মেহের আফরোজ চুমকি নারীদের সম্মিলিত চেষ্টায় অনন্য এক বাংলাদেশ গড়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘অনন্যা’ এই শব্দটি অত্যন্ত ছোট। কিন্তু এর গভীরে আছে অসাধারণ সব অর্থ। নারী পারেনা এমন কিছুই নেই। নারী পারে অনেক কিছুই। তবে পথে অনেক বাধা। এই বাধা অতিক্রম করার জন্য সহযোগিতার হাত বাড়ালে নারী যাবে অনেক দূর। আসুন, আমরা সব নারী মিলে অনন্য এক বাংলাদেশ গড়ে তুলি।

বাংলাদেশের প্রথম নারী উপাচার্য জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. ফারজানা হক বলেন, জীবনে কখনও ভাবিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হবো। স্বপ্ন ছিলো একজন শিক্ষক ও গবেষক হিসেবে কাজ করবো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করে নারী হওয়ায় সেবছর নিজের বিশ্ববিদ্যালয়েই চাকরির জন্য আবেদন করতে পারিনি। কারণ মেয়েদের কোনো কোটা ছিল না। তাই আজ এখানে দাঁড়িয়ে পথটা যত মসৃণ মনে হচ্ছে, আসলে তা ততটা মসৃণ নয়।

দিল মনোয়ারা মনু সাংবাদিকতাসহ সব পেশার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সমাজ ও রাষ্ট্রের সহযোগিতার হাতটিকে আরও প্রশস্ত করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, নারীদের কেবল কাজের স্বীকৃতি দিলেই যথেষ্ট নয়, তাদের কাজের জন্য যথোপযুক্ত কাজের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। প্রয়োজনীয় সব সুযোগ-সুবিধা নারীদের জন্য নিশ্চিত করতে হবে।

সম্মাননা প্রদান শেষে অনন্যা শীর্ষ দশ সম্মননা প্রাপ্ত নারীদের অর্জন ও জীবন সংগ্রাম নিয়ে প্রকাশিত একটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। এতে ১৯৯৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত অনন্যা শীর্ষ দশ প্রাপ্ত ২১০ জন নারীর সংক্ষিপ্ত পরিচয় ও জীবন সংগ্রাম উপস্থাপন করা হয়েছে।

এই অক্টোবরেই ২৭ বছর পূর্ণ করতে যাচ্ছে ‘পাক্ষিক অনন্যা’। অনন্যার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সুমি’স হট কেকের সৌজন্যে ২৭ কেজি ওজনের একটি কেক কেটে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়।

সবশেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কিশোরগঞ্জের হাওর এলাকার বংশী বাদক স্বরসতী দাশ বাঁশি বাজিয়ে শোনান। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন দেশে বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পীবৃন্দ। অনুষ্ঠানের শুরুতে বিশেষ নৃত্য পরিবেশন করে শিল্পী সাধনা।

ঢাকা, ১২ সেপ্টেম্বর (ওমেনঅাই)// এসএল//

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close