আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
প্রযুক্তি

ডিএমপির নারী-সহায়তার জন্য নারী বাটন

ওমেন আই: ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ডিএমপি ঢাকায় বসবাসরত নাগরিকদের জন্য মঙ্গলবার স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদ। ডিএমপি মিডিয়া সেন্টার মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ সেবা আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করলো।
প্রাথমিক অবস্থায় উত্তরায় এ সেবা চালু করলেও এবার পুরান ঢাকায় চালু হতে যাচ্ছে। ঢাকা মেটোপলিটন পুলিশের উত্তরা বিভাগের ডেপুটি কমিশনার মো. নিশারুল আরিফ জানান ‘অ্যাপসটি চালুর পর (উদ্বোধনের আগে) প্রথম রাতেই ১৪ হাজার ডিভাস থেকে অ্যাপসটি ডাউনলোড করা হয়েছে’ ।

অ্যাপসটির সাহায্যে নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনের সঙ্গে যোগাযোগ করার পাশাপাশি রাস্তায় বিপদে-আপদে, আগুন লাগার মতো দুর্ঘটনায় মাত্র এক ক্লিকেই ফোন করতে পারবেন ব্যবহাকারীরা। এ জন্য আর কষ্ট করে থানায় আসতে হবে না। কষ্ট করে পুলিশ স্টেশনের ফোন নম্বর মুখস্ত রাখতে হবে না।
ডিএমপির নারী-সহায়তা বিভাগের বিভিন্ন সেবা পাওয়ার জন্য ব্যবহার করা যাবে ‘নারী বাটন’টি। জরুরী প্রয়োজনে এই অ্যাপ্লিকেশনে থাকা যে কোন ফোন নম্বরে এসএমএস করা যাবে মাত্র এক ক্লিকেই। হঠাৎ রাস্তায় ঘটা কোন দুর্ঘটনায় ডিএমপির হটলাইনে জানানোর জন্য এতে রয়েছে একটি ‘কুইক কনটাক্ট বাটন’ যা ব্যবহার করে সহজেই ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশকে যে কোন তথ্য দেয়া যাবে সরাসরি ফোনে বা ইমেইলে।
এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের পুলিশি সেবা এবং সেগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে এই অ্যাপসটির মাধ্যমে। পাশাপাশি পুলিশকে বিভিন্ন পরামর্শও দেয়া যাবে এই অ্যাপসটির মাধ্যমে। যে কোনো ধরনের সমস্যায় পুলিশ স্টেশনের কার সাথে কথা বলতে হবে সে নির্দেশনাও রয়েছে অ্যাপটিতে। ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার যেকোনো প্রান্তে দাঁড়িয়ে নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনের ম্যাপ দেখা যায়। বাতলে দেয় নিজের অবস্থান থেকে সবচাইতে কাছের পুলিশ স্টেশনে যাবার সবচাইতে সহজ রাস্তাটিও।
ডিএমপির ফেসবুক পেজে সহজেই যে কোন পোস্ট বা মেসেজ দেয়ার জন্য এতে রয়েছে একটি ‘ফেসবুক বাটন’ যা সরাসরি ডিএমপির সর্বশেষ তথ্য ও সেবা সম্পর্কে জানতে সাহায্য করবে। জরুরী প্রয়োজনে ডিএমপির ব্লাড ব্যাংক থেকে রক্ত সংগ্রহ এবং এ সম্পর্কিতে অন্যান্য তথ্য জানার জন্য এতে সংযোজন করা হয়েছে একটা ‘ব্লাড বাটন’।
এই অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করেছেন তরুণ দুই কম্পিউটার প্রকৌশলী মো. তারিক মাহমুদ এবং মনসুর হোসেন তন্ময়। যে কেউ সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এটি ডাউনলোড করতে পারবেন ।

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close