আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
স্বাস্থ্য

ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় প্রক্রিয়াজাত খাবার!

doc61nxhm1fz743si1vkxpওমেনঅাই:প্রক্রিয়াজাত খাবার ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) সর্বশেষ গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, প্রতিদিন দুই টুকরার কম (প্রায় ৫০ গ্রাম) প্রক্রিয়াজাতকৃত গোশত খেলেই অন্ত্রের ক্যানসার বৃদ্ধির আশংকা বেড়ে যায় ১৮ শতাংশ। যদিও পরিমাণটা খুবই কম।

এতদিন ধরে গরু, ছাগল, ভেড়া কিংবা শুকরের মাংস খাওয়ায় ক্যান্সারের যে শঙ্কার কথা বলা হচ্ছিল, তাতে এখন অতটা ঝুঁকি দেখছেন না গবেষকরা।

ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সার (আইএআরসি) সোমবারই তাদের একটি ‘রেড মিট’ ও ‘প্রসেসড মিট’ নিয়ে চালানো একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

ক্যান্সার গবেষকদের ফ্রান্সভিত্তিক এই সংস্থাটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিওএইচও) একটি অংশ। এই গবেষণায় ১০টি দেশের ২২ জন ক্যান্সার গবেষক কাজ করেন।

আইএআরসির গবেষণালব্ধ এই ফল ক্যান্সার ঝুঁকির কারণ হিসেবে ‘রেড মিট’ নিয়ে চলমান বিতর্ক নতুন দিকে মোড় নেবে বলে মনে করা হচ্ছে।

প্রক্রিয়াজাতকৃত গোশত হলো-সাধারণ গোশতকে লবনজাতীয় কোনো দ্রব্য বা সংরক্ষণ করার কোনো উপাদান মিশিয়ে ভিন্ন রকম স্বাদের বানানো। খাবারের এই ভিন্নতার কারনেই ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার আশংকাটা বেড়ে যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বেকন স্যান্ডউইচের মতো প্রক্রিয়াজাতকৃত খাবারকে প্লুটোনিয়াম খাওয়া সঙ্গে তুলনা করেছেন। এটা ধূমপান করার থেকেও কম নয়।

তারা বলেছে, “প্রক্রিয়াজাত মাংস খাবার হিসেবে গ্রহণ যে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়, গবেষণায় তার যথেষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেছে।”

অন্যদিকে রেড মিটকে রাখা হয়েছে নিচের তালিকায়, এর সঙ্গে রয়েছে গ্লাইফসফেট।

রেড মিটকে নিচের তালিকায় রাখার মানে হল, এতে ক্যান্সারের ঝুঁকি তুলনামূলক কম।

আইএআরসির বিবৃতিতে বলা হয়, “রেড মিট গ্রহণ ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায় গবেষণায় এই রকম প্রমাণ অল্প প্রমাণই মিলেছে।”

আইএআরসির গবেষক ড. কুর্ট স্ট্রাইফ বলেন, “ব্যক্তিবিশেষের ক্ষেত্রে এখনও প্রক্রিয়াজাত মাংস গ্রহণের কারণে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা কম। তবে এই ধরনের মাংস গ্রহণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় ঝুঁকিও বাড়ছে।”

ঢাকা, ২৭ অক্টোবর(ওমেনআই২৪ডটকম)//এসএল//

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close