আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
শিল্প-সংস্কৃতি

অন্ধকার শক্তি দূর করতে পারে সংস্কৃতি:সংস্কৃতি মন্ত্রী

2015_11_22_12_57_05_nmtrxODqhwWqww0jCuSGnMJo9BDGDc_originalওমেনঅাই:শুধু রাজনীতি নয়, অন্ধকার শক্তি দূর করতে পারে সংস্কৃতি- মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত স্মরণে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন,

শনিবার সন্ধ্যায় জাতীয় জাদুঘরের বেগম সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে মাইকেল মধুসূদন দত্ত স্মরণে আয়োজিত ‘দাঁড়াও পথিক –বর, জন্ম যদি তব বঙ্গে!’ শীর্ষক এক আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘অন্ধকার শক্তি মাথাছাড়া দিয়ে উঠায় দেশে অনেক অনাকাঙ্থিত ঘটনা ঘটেছে। আমরা একসময় ছায়ানট, উদীচীর অনুষ্ঠানে বোমা হামলা দেখেছি। দেশের বাউল সম্প্রদায়ের লোকদের চুল, দাড়ি কেটে দিতে দেখেছি। এ অন্ধকার শক্তিকে দূর করতে আমাদেরকে সংস্কৃতির চর্চার প্রসার ঘটানো প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, ‘শুধু রাজনীতি নয়, অন্ধকার শক্তি দূর করতে পারে সংস্কৃতি।’ ছাত্র-ছাত্রীদের সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চার ব্যপারে শিক্ষকরা এখন উদাসীন মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মাইকেল নিয়ে আলোচনা করছি কিন্ত এ প্রজন্মের কয়জনই বা তার লেখা পড়ে, তাকে জানে। রবীন্দ্র-নজরুল নিয়েই আমাদের জানার আগ্রহ খুব একটা নেই।’

অনুষ্ঠানে আলোচকরা মধুসূদন দত্ত প্রসঙ্গে বলেন, মধুসূদন তার লেখার মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষাকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। আধুনিক বাংলাভাষার রুপকার এ কবি বার বার বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদকে চিম্বোলিক আকারে তার লেখায় ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন।

বক্তারা বলেন, মাইকেল মধুসূদন আমাদের ভূমিপুত্র। জন্মসূত্রে মধুসূদন রবীন্দ্র-নজরুলের থেকেও আমাদের অতি আপনজন। রাজনীতিক কারনে রবীন্দ্র –নজরুলের আড়ালে ডাকা পড়ে আছেন এই হতভাগা মহাকবি। মধুসূদনের নামে যশোরে একটি সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হলে বর্তমান প্রজন্ম তাকে নুতনভাবে জানার সুযোগ পাবে।

যশোরের জেলা প্রশাসক ড. মো. হুমায়ূন কবীর এর সভাপতিত্বে এসময় আরো বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক, জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের সচিব বেগম আখতারী মমতাজ, সাবেক সচিব রনজিৎ কুমার বিশ্বাস, জাতীয় জা্দুঘরের মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী, কবি নির্মলেন্দু গুন, কবি রেজাউদ্দিন স্টালিন, মধুসূদন একাডেমির পরিচালক খসরু পারভেজ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে যশোরের কেশবপুরের শিল্পীদের পরিবেশনায় মঞ্চায়িত হয় গীতি আলেখ্য ‘জন্ম যদি তব বঙ্গে’ এবং প্রহসন ‘বুড় শালিকের ঘাড়ে রোঁ’। এছাড়া মধুসূদনের কবিতা আবৃত্তি করেন যশোর ও ঢাকার বিভিন্ন আবৃত্তিশিল্পীরা। অনুষ্ঠানে মধুসূদন গবেষক কবি খসরু পারভেজ সম্পাদিত ‘মধুসূদন নির্মিত গ্রন্থমালা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

ঢাকা, ২২ নভেম্বর (ওমেনঅাই২৪ডটকম)//এসএল//

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close