আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
সারাদেশস্লাইড

নিরাপত্তা ব্যবস্থায় খুশি ভোটাররা

ওমেনআই ডেস্ক : জঙ্গি অভিযানকে সামনে রেখে কুমিল্লায় উদ্বেগ আর আশঙ্কার মধ্যে শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহনের জন্য নজিরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করেছে নির্বাচন কমিশন।

বলা হচ্ছে, অপ্রীতিকর ব্যবন্থা এড়াতে ‘জিরো টলারেন্সে’ রয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা। কোনো ধরনের অনিয়ম সহ্য করা হবে না এবং বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে যে কোনো ধরনের কঠোর পদক্ষেপ গ্রহন করার হুঁমকি দিয়েছেন নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। আর কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সন্তোষ প্রকাশ করছেন ভোটাররা।
সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল বলেন, ‘নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। কোনো অনিয়ম হবে না। যে কোনো বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে যে হাতিয়ার প্রয়োজন সেটা ব্যবহার করব।’
অপর এক সংবাদ সম্মেলনে কুমিল্লার পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন বলেন, যে কোনো ধরনের অনিয়ম, সহিংসতা ও দাঙ্গা-হাঙ্গামার বিরুদ্ধে, জিরো টলারেন্স দেখানো হবে। কেউ কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা করতে এলে রেহাই পাবে না।’
দায়িত্ব নেওয়ার পর এটিই কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নতুন নির্বাচন কমিশনের প্রথম কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতামুলক নির্বাচন আয়োজন, যেটি তার জন্য এক ধরনের নিরপেক্ষতার পরীক্ষা।
যেমনটি বলেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী- ‘কুমিল্লা সিটি নির্বাচন বর্তমান ইসির কাছে একটা অগ্নিপরীক্ষা। এ ইসির প্রতি অনেক রাজনৈতিক দলের নানা প্রশ্ন রয়েছে। এ পরীক্ষায় পাস করলে রাজনৈতিক দলগুলো ইসির প্রতি আস্থা পাবে।’
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের কোটবাড়িতে একটি বাড়িতে জঙ্গি অবস্থানের সূত্র ধরে সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ঘিরে রয়েছে। তবে সেখানকার কেন্দ্রগুলোতে ভোটগ্রহন চলছে। ভোটের পরদিন জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালানোর কথা রয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, নির্বাচনকে অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে নগর জুড়ে মোতায়ন রাখা হয়েছে বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য। নগরীর ২৭ ওয়ার্ডে প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি, এপিবিএন ও আনসার সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে। নির্বাচনের পরদিন পর্যন্ত ৩৬ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং নয়জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটসহ ৪৫ জন ম্যাজিস্ট্রেট আইনশৃঙ্খলার তদারকি করবেন।
এছাড়া পুলিশের দুই হাজার ৪৫৬ জন সদস্য, র‌্যাবের ৩৩৮ জন, বিজিবির ২৭ প্লাটুনে ৬০০ জন এবং কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সঙ্গে প্রশিক্ষিত ব্যাটালিয়ন আনসারের ৫৩০ জন ও আনসারের ১৪৪২ জনসহ ১৯৭২ জন সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close