আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
সারাদেশ

বিয়ের আগে দুশ্চিন্তা, কি হবে বিয়ের পর

খাদিজা খানম তাহমিনা : কিছুদিন ধরেই রুমকির বাবা-মা উঠেপড়ে লেগেছেন মেয়ের বিয়ের ব্যাপারে। দুজন দেখেও গেছে রুমকিকে। ওদের পছন্দ হলেও রুমকির আগ্রহ না থাকায় চুপসে গেছেন তার বাবা-মা। কিন্তু কোনো আগ্রহ নেই বিয়েতে রুমকির? মা-বাবার সন্দেহ বড় হতে না দিয়ে রুমকি তার মনের কথাটা তাদের খুলে বলল ‘আমি ভীষণ টেনশন করছি। কারণ একজনের সঙ্গে সারা জীবন কাটাতে হবে ভাবলেই আমার ভয় হয়। যদি বিয়ের পর আমার স্বাধীনতা হরণ হয়, যদি আমাকে ও বাড়ির লোকজন চাকুরি করতে না দেন, যদি আমার প্যাশন, ভাললাগা, ভালবাসা, ওরা না বুঝে, আমার আজকের এই স্বাধীনভাবে চলা, আমার সিদ্ধান্ত গ্রহণ, এই বিষয়গুলো কিভাবে নিবে তারা এটা কিভাবে নিশ্চিত হই। আমার ক্যারিয়ার যদি বাধাগ্রস্ত হয় তাহলে…।’
বিয়ের মতো ক্যারিয়ারও এখনকার মেয়েদের কাছে আকর্ষণীয়। মেয়েরা এখন তাদের ক্যারিয়ার নিয়ে খুবই সচেতন। তাই বিয়ের আগে মেয়েরা ক্যারিয়ার নিয়ে বেশ টেনশন করে। পরিবার ও বাইরের জগতের মধ্যে ভারসাম্য না রাখতে পারলে জীবন কিছুটা একমুখো হবেই। পেশাদারি জগতে যে সাফল্য বা পরিচিতি পাওয়া যায়, তা স্বামীর কাছ থেকে যেমন পাবেন না, ঠিক তেমনি আদর ভালবাসা, আন্তরিকতার স্পর্শও বাইরের জগৎ থেকে পাওয়াটাও অসম্ভব। বিয়ে এবং ক্যারিয়ারকে পরস্পরবিরোধী ভাবাও ঠিক নয়। নিজের ঘর বা অফিসেও নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়, অনেক কিছু নিজেকে মানিয়ে নিতে হয়, তেমনি নতুন সংসারেরও না হয় কিছুটা। মানিয়ে নেবেন। প্রথম থেকেই যদি মনের ভেতর স্বামী এবং তার পরিবারের লোকজনের প্রতি বিতৃষ্ণা পোষণ করেন তার ফল অবশ্যই ভালো হবে না। পজিটিভ মানসিকতা পোষণই সুন্দর জীবনের মূলমন্ত্র এটা ভুলে যাবেন না।
নতুন সম্পর্কের শুরু থেকেই অর্থাৎ নিজেদের মধ্যে দেখা সাক্ষাতের পর্ব থেকেই আপনার হবু স্বামীর (যদি নিজেদের মধ্যে পছন্দের বিষয় থাকে) সঙ্গে সহজ সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করুন। খুব সহজ ও স্বাবলীলভাবে আন্তরিকতার সঙ্গে আপনার কাজের জগৎ, প্যাশন, ভালোলাগার কথাগুলো তার সঙ্গে শেয়ার করুন। খোলামেলাভাবে বিষয়গুলো সম্পর্কে তার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে তার ভাবমূর্তি জেনে নিন। যোগাযোগ বাড়ান এবং তার পছন্দ অপছন্দের টুকিটাকি ও জেনে নিন। ছোট-খাট সারপ্রাইজ দিয়ে চমকে দিন। যে যদি আপনার ক্যারিয়ার এবং আপনাকে সহজভাবে মেনে নেন তাহলে সেও আপনাকে নিশ্চয়ই চেষ্টা করবেন খুশি দেখতে, ভালো রাখতে। যখন আপনার মনে হবে, আপনাদের মধ্যে সঠিক বোঝাপড়া গড়ে ওঠেছে, তখনই বিয়ের সিদ্ধান্ত নেবেন। বিয়ের শুরু একজন মানুষের সঙ্গে আরেকজন মানুষের সম্পর্ক-তা নয়, একটা মানুষের সামগ্রিক বিষয়াদির সঙ্গেই সম্পর্ক তৈরি হয়। মনে রাখা উচিত, নতুন সম্পর্কে আপনার জীবনের নতুন মাত্রা যোগ হচ্ছে। ভালবাসা আর আন্তরিকতা দিয়ে নিজেদের সম্পর্কটাকে মজবুত করুন, দেখবেন আপনার সব দুশ্চিন্তা দূর হয়ে যাবে। পজিটিভ মাইন্ড সেন্ট করতে পারলে নতুন জীবন আগের জীবনের চেয়ে আরো সুন্দর হয়ে যাবে। দুশ্চিন্তা আসলে কোনো সমাধান নয়। এতে সমস্যা আরও ডালপালা বিস্তার করে। তাই বিয়ের আগে, পরে কি হবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তা না করে সামনের দিকে এগিয়ে যান। নিজেদের মধ্যে প্ল্যান করে নিন। সামনের দিনগুলোর পরিকল্পনা।

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close