আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
খেলাধুলা

সেরেনার রেকর্ড সপ্তম শিরোপা

ওমেন আই:
নারীদের টেনিসের দুই শীর্ষ তারকার লড়াইয়ে সেরেনা উইলিয়ামস ৭-৫, ৬-১ গেমে লি নাকে হারিয়ে রেকর্ড সপ্তমবারের মতো মায়ামি ওপেনের শিরোপা জিতলেন। ১৭ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী সেরেনা এই শিরোপার মাধ্যমে তার ক্যারিয়ার ট্রফি সংখ্যাকে নিয়ে গেলেন ৫৯-এ। আর মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা, স্টেফিগ্রাফ, ক্রিস এভার্টের পর ওপেন যুগের প্রথম নারী হিসাবে একই টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতলেন সাত কিংবা তার বেশিবার।

দুজনের জন্যই গতকালের ফাইনালটি ছিল অন্যরকম। সেরেনার সামনে ছিল সপ্তম শিরোপার হাতছানি, আর লি নার সামনে ছিল প্রথম শিরোপার সুযোগ। কিন্তু প্রায় একপেশে এক ম্যাচে সেরেনার সামনে পাত্তাই পেলেন না অস্ট্রেলিয়ান ওপেন শিরোপা জয়ী লি। প্রথম সেটে কিছুটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারলেও সেরেনার পাওয়ার টেনিসের সামনে দ্বিতীয় সেটে দাঁড়াতেই পারলেন না।

আর নিজের ‘হোম টাউনে’ স্বাগতিক দর্শকদের সামনে শিরোপা জেতার পর সেরেনা ছিলেন স্বভাবতই দারুণ উচ্ছ্বসিত। নারীদের টেনিসের এক নম্বর এই আমেরিকান বলেন, ‘অবশ্যই আমি এখানে শিরোপা জিততে সব সময় মুখিয়ে থাকি। ম্যাচের শেষ দিকে আমার যেন আর তর সইছিল না।’

১৬ বছর বয়সে প্রথমবারের মতো খেলেছিলেন মায়ামি ওপেনে। তবে আজ আরো ১৬ পরেও মায়ামিতে খেলার উত্তেজনা এতটুকু ফিকে হয়নি জানিয়ে উইলিয়ামস বোনদের ছোটজন বলেন, ‘আমার মনে আছে ছোট বেলা থেকে এই টুর্নামেন্ট দেখতে দেখতে আমি বড় হয়ে উঠেছি। আমি দেখতাম অনেক খেলোয়াড় এখানে খেলতে আসতেন। আর সেই খেলোয়াড়দেরই একজন হতে পারার অনুভূতিটা সবসময়ই বিশেষ কিছু।’

অথচ, ম্যাচের শুরুটা ইঙ্গিত দিচ্ছিল অন্য কিছুরই। গত কয়েক বছর ধরেই বিশ্ব টেনিসে এশিয়ার ঝান্ডা উড়িয়ে চলা লি না প্রথম সেটের একপর্যায়ে এগিয়ে গিয়েছিলেন ৫-২ গেমে। কঠিন পরিস্থিতি বুঝতে পেরেই কিনা হঠাত্ করেই ঘুরে দাঁড়ান সেরেনা। পরবর্তী পাঁচটি গেম তুলে নিয়ে সেট জেতেন ৭-৫ গেমে। এরপর দ্বিতীয় সেটে প্রতিপক্ষকে ৬-১ ব্যবধানে উড়িয়ে দিয়ে ভাগ বসান নাভ্রাতিলোভাদের রেকর্ডে। ম্যাচ শেষে সেরেনাও জানালেন ঐ সময় কিছুটা দুশ্চিন্তা পেয়ে বসেছিল তাকেও, ‘আমি সত্যিই বুঝতে পারছিলাম আমাকে এর চেয়ে ভাল খেলতে হবে। সার্ভে আমার পারফরম্যান্স ছিল খুব বাজে। আমি ভাবলাম, আমি কি আরেকটু ভাল সার্ভ করার চেষ্টা করতে পারি না? এত বছর ধরে আমার অনুশীলন কি কোন কাজেই আসবে না? আর এই চিন্তা থেকেই ঘুরে দাঁড়ানোটা শুরু হয়।’ অন্যদিকে, মায়ামিতে প্রথম শিরোপার খুব কাছাকাছি গিয়েও শেষ পর্যন্ত হতাশ হয়ে ফেরা লি না জয়ের পুরো কৃতিত্বই দিলেন প্রতিপক্ষকে, ‘আমার মনে হয় না আমি খারাপ খেলছিলাম। বরং, ৫-২ গেমে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় সে একটু বেশি ভাল খেলা শুরু করে। সব মিলে নিজের পারফরম্যান্সে আমি খুশি।’

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close