আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
সারাদেশ

মুচলেকা দিলেই সময় পাবে বিজিএমইএ

ওমেনআই ডেস্ক : ‘আর সময় চাইবেন না উল্লেখ করে মুচলেকা দিলে বিজিএমইএ ভবন সরাতে সময় দেবেন’ মর্মে শর্ত দিয়েছেন আপিল বিভাগ। আজ মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার বিচারপতির বেঞ্চ এই শর্ত দেন।
বিজিএমইএ- পক্ষের অ্যাডভোকেট ইমতিয়াজ মইনুল ইসলাম জানিয়েছেন, ‘আমরা এক বছর সময় চেয়েছি এবং বলেছি যে আর সময় চাইবো না। আদালত বলেছে, এ বিষয়ে মুচলেকা দেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে আদালত আজ আদেশ দেননি। আগামীকাল আদেশ দেবেন।’
গত ২৫ মার্চ বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকে ভবন ভাঙতে এক বছর সময় চেয়ে আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়। সেই আবেদনের শুনানি নিয়ে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ বিজিএমইএ’র আবেদনের ওপর আদেশের জন্য আজকের দিন ধার্য করেছিলেন।
এর আগে গত ৫ মার্চ ভবন ভাঙতে এক বছর সময় চেয়ে আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় আবেদন করেছিলেন বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ।
২০১১ সালের ৩ এপ্রিল হাইকোর্টের রায়ে বিজিএমইএ ভবন ভাঙার নির্দেশ দেওয়া হয়। ‘হাতিরঝিল প্রকল্পে বিজিএমইএ ভবন একটি ক্যানসারের মতো’ উল্লেখ করে রায় প্রকাশের ৯০ দিনের মধ্যে ভবনটি ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হয়।
পরে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল করে বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ। এই লিভ টু আপিল ২০১৬ সালের ২ জুন খারিজ করে রায় ঘোষণা করেন আপিল বিভাগ।
আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়, ‘বেগুনবাড়ি খাল’ ও ‘হাতিরঝিল’ জলাভূমিতে অবস্থিত ‘বিজিএমইএ কমপ্লেক্স’ নামের ভবনটি নিজ খরচে অবিলম্বে ভাঙতে আবেদনকারীকে (বিজিএমইএ) নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। এতে ব্যর্থ হলে রায়ের অনুলিপি হাতে পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে ভবনটি ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হলো। এ ক্ষেত্রে ভবন ভাঙার খরচ আবেদনকারীর কাছ থেকে আদায় করবে তারা। এ রায়ের বিরুদ্ধে বিজিএমইএ রিভিউ (পুনর্বিবেচনা আবেদন) করলেও তা গত বছরের ৫ মার্চ খারিজ করেন আপিল বিভাগ।

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close