আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
আন্তর্জাতিক

ভারতে গর্ভবতী নারীকে জোর করে নাচালো কলেজ কর্তৃপক্ষ

ওমেনআই ডেস্ক : দুই বছরের বিএড কোর্স করাকালীন গর্ভবতী এক নারীকে জোরপূর্বক নাচিয়েছে ভারতের ছত্তিসগড়ের সন্ত হরকেওয়াল বিএড কলেজ কর্তৃপক্ষ। ওই নারীকে আর্টস ক্লাসে পরীক্ষার অংশ হিসেবে তাকে নাচতে বাধ্য করা হয়।
সম্প্রতি টাইমস অব ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা জানান প্রতিভা মিনজ (২৪) নামে ওই শিক্ষার্থী।
প্রতিভা জানান, সমস্যার সূত্রপাত গত ৬ ডিসেম্বর৷ প্রতিভার তখন আট মাসের গর্ভাবস্থা৷ ওই অবস্থায় টানা ক্লাস করেন প্রতিভা৷ ৩ ফেব্রুয়ারি তিনি একটি সন্তানের জন্ম দেন, তার পর থেকে ছুটিতে ছিলেন৷ প্রতিভার অভিভাবক ছুটির দরখাস্ত জমা দিতে গেলে কর্তৃপক্ষ তা নামঞ্জুর করে দেন৷ এমনকি তার ক্লাসে উপস্থিতির হার ৯৪ শতাংশ থাকলেও তাকে পরীক্ষায়ও বসতে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন প্রতিভা।
ছত্তিশগড়ের অম্বিকাপুর সন্ত হরকেওয়াল বি.এড কলেজে ভর্তি নেওয়ার আগেই ছাত্রীদের একটি হলফনামায় স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হয়। যেখানে শুরু থেকে দুই বছরের এই কোর্সে কোনো নারী গর্ভবতী হতে পারবেন না বলে উল্লেখ ছিল।
এদিকে নির্যাতনের স্বীকার প্রতিভা তার গর্ভাবস্থার বিষয়টি তিন মাস পর জানতে পেরেছেন বলে সাক্ষাৎকারে জানান। গর্ভাবস্থাতেও প্রতিভা নিয়মিত ক্লাসে উপস্থিত ছিলেন। তবে গত বছর ডিসেম্বরে শিল্প ও শিক্ষা পরীক্ষার অংশ হিসেবে তাকে ক্লাসের সবার সামনে নাচতে বলা হয়। এসময় উপস্থিত শিক্ষকদের অনুরোধ করেও পার পাননি। একপর্যায়ে নিজের গর্ভাবস্থার বিষয়টি কলেজ কর্তৃপক্ষকে জানান প্রতিভা।
তিনি বলেন, ‘গর্ভাবস্থার বিষয়টি তাদের জানানোর পর শিক্ষকরা আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। তারা আমাকে আরও জোর করতে লাগলেন নাচার জন্যে। এমনকি তাদের কথায় আমি না নাচলে পরীক্ষায় আমার নম্বর কেটে নিবেন বলেও হুমকি দেওয়া হয়। তাই ফলাফল খারাপ হওয়ার ভয়ে আর কিছু বলিনি।’
পরবর্তীতে প্রতিভা এ বিষয়ে উচ্চ কর্তৃপক্ষের শরণাপন্ন হন। বিষয়টি ওই এলাকার কালেক্টর কিরন কুশালের জানানোর পর পরই তিনি প্রতিভার সঙ্গে দেখা করেন।
কালেক্টর কিরন কুশালের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, বিষয়টি জানার পরই তিনি ওই কলেজের অধ্যক্ষকে গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত হলফনামা বাতিলের আদেশ দেন। অন্যদিকে প্রতিভার ওপর নির্যাতনের বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখছেন বলেও জানান।

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close