আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
আপন ভুবন

প্রতিবন্ধকতাকে জয় করলেন পিয়াসা

ffffffওমেন আই:কথায় বলে যে শুয়ে থাকে তার ভাগ্যও শুয়ে থাকে। কিন্ত এই প্রবাদ বাক্যকে একশো শতাংশ ভুল প্রমাণ করে দিল নদিয়ার পিয়াসা মহলদার। মাত্র দুই ফুট উচ্চতার পিয়াসা সারাদিনে প্রায় বাইশ ঘণ্টা শুয়ে কাটায়। আর এভাবে শুয়ে শুয়ে পরীক্ষা দিয়েই মাধ্যমিকে তার প্রাপ্ত নম্বর ৫২৩।

ভারতের নদিয়ার শান্তিপুর মামদোপাড়া লেনের বাসিন্দা পিয়াসা মহলদার। শান্তিপুর রাধারানী নারী শিক্ষামন্দিরের ছাত্রী সে। শারীরিকভাবে প্রায় একশো শতাংশ প্রতিবন্ধী পিয়াসার পা দু’টি এতটাই ছোট যে সে দাঁড়াতে তো পারেই না, এমনকি বসে থাকাটাও রীতিমত কষ্টকর তার পক্ষে। একনাগারে কয়েক মিনিটও বসে থাকতে পারে না। সেই কারণে সারাদিনই শুয়ে থাকতে হয় তাকে। তবে শারীরিক সমস্যার কাছে হার মানতে নারাজ সে ছোটো থেকেই। তাই সমস্যা যত গুরুতর হোক পিয়াসার মনের জোরের কাছে হার মেনেছে সবই।

তার ছোট্ট শরীরে ছোট্ট ছোট্ট হাত। তবু শিক্ষিত হওয়ার অদম্য বাসনা বুকে নিয়ে তা দিয়েই শক্ত হাতে কলম ধরার অভ্যাস করে ফেলেছিল সে। তার ছোট্ট ছোট্ট পায়ে চলার শক্তি না থাকলেও নিজের চেষ্টা আর মায়ের সহায়তায় একটু একটু করে স্বপ্নপূরণের পথে এগিয়ে গেছে। পৌঁছে গেছে মাধ্যমিক পরীক্ষার দোরগোড়ায়। কারোর সাহায্য ছাড়াই পরীক্ষা দিয়েছিল পিয়াসা। সেই ছোট্ট ছোট্ট হাতে কলম চালিয়েই মাধ্যমিকে পিয়াসা পেয়েছে ৫২৩ নম্বর।

দীর্ঘ লড়াই শেষে এখন তাই জয়ের হাসি তার মুখে। রবীন্দ্র-সাহিত্যের অনুরাগী পিয়াসার অবসর কাটে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নানা বই পড়ে। ইতিহাস তার প্রিয় বিষয়। আগামী দিনে ইতিহাস নিয়েই পড়তে চায় সে। দু’চোখে শিক্ষিকা হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এবার সেই লক্ষ্যেই এগিয়ে যেতে চায় পিয়াসা। আর সেই লক্ষ্য পূরণে অবিচল পিয়াসা শারীরিক সমস্যাকে একেবারেই গুরুত্ব দিতে নারাজ। তার সোজা কথা, ‘শারীরিক সমস্যা যাই থাক, তাতে আমার কোনো অসুবিধা নেই। আমি উচ্চশিক্ষিত হতে চাই। ভবিষ্যতে শিক্ষিকা হওয়াই আমার একমাত্র স্বপ্ন।’

ঢাকা ২৪ মে (ওমেন আই)এলএইচ//

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close