আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
নারী সংগঠনস্লাইড

না.গঞ্জে যৌতুকের জন্য হত্যা, আসামী গ্রেফতারে পুলিশের গাফলতি; বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

ওমেনআই ডেস্ক : নারায়নগঞ্জের আড়াইহাজারে গৃহবধূ স্মৃতি রানী বর্মণ হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে নারায়ণগঞ্জ রোটারি ক্লাব অব রিভার সাইড। রোববার (১৯ আগস্ট) সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন সংগঠনটি।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ রোটারি ক্লাব অব রিভার সাইডে সভাপতি এম এ মতিন, চৌধুরী আরিফ, এহসান, সুমনসহ নিহতের পরিবারসহ এলাকার লোকজন।

জানা গেছে, অসহায় পিতা হরিচরণ বর্মণ মেয়ে স্মৃতি রানী বর্মণের সুখের জন্য ১০ লাখ টাকা যৌতুক দিয়েও তাকে বাঁচাতে পারেনি । আরও ৪ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য স্বামী, শাশুড়িসহ ৫জন মিলে নির্মম নির্যাতন করে হত্যা করে তাঁর মেয়ে স্মৃতি রানী বর্মণকে।

উপজেলার রাবগণী গ্রামে ৯ আগস্ট এ হত্যাকান্ডটি ঘটে। এ ঘটনায় ১২ আগস্ট আড়াইহাজার থানায় স্মৃতি বর্মণের পিতা হরিচরণ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলায় আসামী করা হয়েছে স্মৃতি বর্মণের স্বামী রিপন চন্দ্র বর্মণ, তাঁর মা পরশ মণি বর্মণ এবং তিন ভাই হীরণ চন্দ্র বর্মণ, রঞ্জিত চন্দ্র বর্মণ ও পাগলা চন্দ্র বর্মণ।

মানববন্ধনে দাবি করা হয়, স্মৃতি রাণী বর্মণকে বিয়ের পর শ্বশুড়বাড়ির ৬ লাখ টাকা দিয়েই লন্ডনে চলে যায় রিপন চন্দ্র বমর্ণ। এর মধ্যে স্মৃতি বর্মণের কোল জুড়ে আসে একটি কন্যা সন্তান। রিপন ৬ বছর লন্ডনে অবস্থান করলেও স্মৃতি ও তাঁর মেয়ের কোনো রকম ভরণ পোষণ করেনি। এমন পরিস্থিতিতে হরিচরণ মেয়ে ও নাতনিকে নিজের কাছে রেখে যাবতীয় খরচ বহন করে লালন পালন করে।

স্মৃতি বর্মণের পিতা হরিচরণ মানববন্ধনে অভিযোগ করেন, লন্ডন থেকে ফিরে এসে রিপন চন্দ্র তাঁর মেয়ে ও নাতনিকে তাঁদের বাড়ি নিয়ে যায়। এরমধ্যে বিভিন্ন ভাবে আমার কাছ থেকে কয়েক ধাপে ১০ লাখ টাকা যৌতুক গ্রহণ করে সে।

এক পর্যায়ে আরও ৪ লাখ টাকার জন্য মেয়েকে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। এতে মেয়ে আমার কাছ থেকে কোনো টাকা এনে দিতে পারবে না জানিয়ে দিলে রিপন, তাঁর মা ও ভাইয়েরা মিলে ৯ আগস্ট স্মৃতি রাণীকে নির্মম নির্যাতন করে গুরুতর আহত করে। গুরুতর আহত অবস্থায় রাত ১০ টার দিকে স্মৃতিকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তার স্মৃতির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করে। এ খবর আমরা রাত ১১ টার দিকে পেয়ে ছুটে যাই।

এ সময় হরিচরণ বর্মণ মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে মানববন্ধনে অঝোরে কাঁদেন। তিনি এ হত্যার জন্য দায়ী স্মৃতি রাণী বর্মণের স্বামী, শাশুড়িসহ সকলের বিচার দাবি করেন।

তাঁর দাবি, এই ঘটনার পর ১২ আগস্ট আড়াইহাজার থানায় মামলা দায়েরের এক সপ্তাহ অতিক্রম হলেও পুলিশ কোনো আসামীকে আইনের আওতায় আনছেন না। তিনি আসামীদের গ্রেফতার পূর্বক শাস্তি দাবি করেন।

অপরদিকে মানববন্ধন থেকে রোটারি ক্লাব অব রিভার সাইডের নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেছেন, পুলিশের গাফলতিতে হত্যাকারীরা দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার পায়তারা করছে। আসামীরা যাতে কোনো ভাবেই দেশ ত্যাগ করতে না পারে সে জন্য পুলিশসহ সচেতন মহলের কাছে দাবি জানানো হয়।

অপরদিকে, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আড়াইহাজার থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) হুমায়ন বলেন,  মামলায় নামীয় আসামি পাগলাকে এরই মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। আশা করছি দ্রুত অন্যান্য আসামিদেরও গ্রেফতার সম্ভব হবে।

Tags

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close