আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
জাতীয়স্লাইড

আজ নৃশংসতম হত্যাযজ্ঞের দিন

ওমেনআই ডেস্ক : আজ সেই ভয়াল ২১ আগস্ট। বাংলাদেশের ইতিহাসে ২১ আগস্ট একটি নৃশংসতম হত্যাযজ্ঞের দিন। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আওয়ামী লীগের ‘সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতিবিরোধী’ সমাবেশে বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলা চালানো হয়।

নেতৃত্ব বিনাসের ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র ছিল ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা। হামলার ধরন এবং ব্যাপকতা থেকে প্রতীয়মান হয় যে, ওইদিন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার পাশাপাশি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে হত্যার পরিকল্পনা নিয়েই গ্রেনেড চার্জ করে ঘাতকেরা।

আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেলেও ২১ আগস্টের সেই গ্রেনেড হামলায় ঘটনাস্থলেই নিহত হন ১৬ জন নেতাকর্মী। আর এ হামলায় প্রয়ায় রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী ও দলের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। আইভি রহমান ৫৮ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে ২৪ আগস্ট মারা যান। আহত হওয়ার পর প্রায় দেড় বছর মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে হেরে যান আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় নেতা ও প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ।

নারকীয় ওই গ্রেনেড হামলায় নিহত অন্যরা হলেন মোসতাক আহম্মদ সেন্টু, শেখ হাসিনার দেহরক্ষী ল্যান্স করপোরাল (অব.) মাহবুবুর রহমান, রফিকুল ইসলাম (আদা চাচা), হাসিনা মমতাজ রীনা, রিজিয়া বেগম, রতন শিকদার, মোহাম্মদ হানিফ ওরফে মুক্তিযোদ্ধা হানিফ, লিটন মুন্সি, আবদুল কুদ্দুছ পাটোয়ারী, বিল্লাল হোসেন, আব্বাছ উদ্দিন শিকদার, আতিক সরকার, মামুন মৃধা, নাসির উদ্দিন সর্দার, আবুল কাসেম, আবুল কালাম আজাদ, আবদুর রহিম, আমিনুল ইসলাম, জাহেদ আলী, মোতালেব ও সুফিয়া বেগম।

হামলায় গুরুতর আহত হন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি (তৎকালীন প্রেসিডিয়াম সদস্য) জিল্লুর রহমান, প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রাজ্জাক, ঢাকার সাবেক মেয়র (প্রয়াত) মো. হানিফ, আমির হোসেন আমু, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, ওবায়দুল কাদের, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, ড. মহিউদ্দীন খান আলমগীর, কাজী জাফর উল্লাহ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, নজরুল ইসলাম বাবু, আওলাদ হোসেন, সাঈদ খোকন, মাহবুবা আখতার, অ্যাডভোকেট উম্মে রাজিয়া কাজল, নাসিমা ফেরদৌস, শাহিদা তারেক দীপ্তি, রাশেদা আখতার রুমা, হামিদা খানম মনি, ইঞ্জিনিয়ার সেলিম, রুমা ইসলাম, কাজী মোয়াজ্জেম হোসেইন, মামুন মল্লিকসহ পাঁচ শতাধিক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী এবং সাধারণ মানুষ।

দীর্ঘদিন চিকিৎসা নিয়ে অনেকে পঙ্গুত্ব বরণ করে দুর্বিষহ জীবন যাপন করছেন। অনেকে শরীরে এখনো গ্রেনেডের স্প্রিন্টারের ভয়ঙ্কর যন্ত্রণা বয়ে বেড়াচ্ছেন। ওই দিনের গ্রেনেড হামলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাম কান মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়। দীর্ঘ চিকিসৎসার পরেও বাম কানের শ্রবণশক্তি স্বাভাবিক হয়নি বলে জানা গেছে।

২১ আগস্ট , দিনটি ছিল শনিবার। প্রধান অতিথি সেই সময়ের বিরোধী দলের নেতা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। একটি ট্রাককে মঞ্চ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। ভাষণ শেষে ট্রাক থেকে নামতে যাবেন শেখ হাসিনা, ঠিক সেই সময়ে বিকেল ৫টা ২২ মিনিটে শুরু হয় গ্রেনেড হামলা।

ওইদিন হামলার পর রক্তে ভেসে যায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউ। ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়ে থাকে আহত-নিহতদের দেহ। এক যুগ পর এখনো অনেকে শরীরে বয়ে বেড়াচ্ছেন গ্রেনেডের স্প্লিন্টার। একের পর এক গ্রেনেড বিস্ফোরণে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয় বঙ্গবন্ধু এভিনিউ। ১৩টি গ্রেনেড বিস্ফোরণের বীভৎসতায় রক্ত আর লাশের স্তূপে পরিণত হয় সমাবেশস্থল।

২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা ছিল ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্টের কালরাতের বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডের ধারাবাহিকতা। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বার্থক উত্তরসূরি শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে রক্তপিপাসুদের ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র।

আওয়ামী লীগের অভিযোগ, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ সরকারের সিনিয়র নেতাদের সমন্বয়ে ও রাষ্ট্রযন্ত্রের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ সহযোগিতায় রাজনৈতিক সমাবেশে এ ধরনের নারকীয় হত্যাযজ্ঞ ঘটানো হয়। এমন জঘন্য ঘটনা পৃথিবীর ইতিহাসে আর খুঁজে পাওয়া যাবে না। সেদিনের সে ভয়াল দিনটি বাঙালি জাতি চিরদিন স্মরণ করবে।

২১ আগস্ট দিনটিকে ২০০৪ সালের পর থেকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে উদ্ভাসিত বাংলাদেশের জনগণ গ্রেনেড হামলা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগও দিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করে থাকে। প্রতিবারের ন্যায় এবারও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দিবসটি স্মরণে নিম্নোক্ত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে ২১ আগস্ট মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নির্মিত বেদীতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে পুস্পার্ঘ্য নিবেদন। এ ছাড়া ২৪ আগস্ট আইভি রহমানোর মৃত্যুবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হবে।

প্রতিবারের ন্যায় এবারও আগামী ২৪ আগস্ট শুক্রবার শহীদ আইভী রহমানের ১৪তম মৃত্যুবাষির্কী উপলক্ষে সকাল সাড়ে ৮টায় বনানী কবরস্থানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ মরহুমার কবরে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করবেন।

Tags

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close