আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
অর্থনীতিজাতীয়স্লাইড

এক জোড়া চামড়ার জুতা দুই হাজার টাকা আর একটা চামড়া এক হাজার টাকা; এইডি কেমন ফাইজলামি

ওমেনআই ডেস্ক : গরু-ছাগলের দামড়ার দর পতন বহু চামড়া নষ্ট হয়ে যাওয়ারও কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। মৌসুমি ব্যবসায়ীরা কোরবানির পর বর্গফুটের হিসাব না বুঝে বাড়তি দামে চামড়া কেনার পর বাজারে নিয়ে হতাশ। ধারণা ছিল, দাম বাড়বে। কিন্তু যারা তা ঘরে ফিরিয়ে নিয়ে গেছেন, তারা সব হারানোর আশঙ্কা। রেখে দেয়া সে চামড়া সঠিকভাবে সংরক্ষণ হয়নি বলে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

রাজধানীর সবচেয়ে বড় চামড়ার বাজার লালবাগের পস্তা বাজার। রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মৌসুমি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা গরু ও ছাগলের চামড়া বিক্রি করতে এখানেই আসেন। প্রতি বর্গ ফুট চামড়া ৩০ টাকা দরে কিনেছেন পস্তা বাজারের চামড়া ব্যবসায়ীরা।

৩০ টাকা প্রতি বর্গ ফুট হিসেবে একেকটি গরুর চামড়ার দর এসেছে ৩০০ থেকে সর্বোচ্চ ১২০০ টাকা।

মৌসুমী ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাড়তি দামে তারা চামড়া কিনেছেন। এখন কম দামে বিক্রি করলে তাদের লোকসান হবে।

লোকসান যেন গুণতে না হয় তাই এসব খুচরা ব্যবসায়ীদের অনেকেই প্রথম দুই দিন চামড়া বিক্রি করেননি৷ তাদের প্রত্যাশা ছিল শেষ দিকে এসে পাইকারি বাজারে চামড়ার দাম বাড়বে। ঘটেছে হিতে বিপরীত৷ চামড়ার দাম বাড়েনি।

ওদিকে সংরক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে গেছে অনেক চামড়া। শুক্রবার বিকালে পস্তা বাজার ঘুরে দেখা যায়, সড়ক জুড়ে পরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ পচা চামড়া।  ব্যবসায়ীরা বলছেন, যারা চামড়া ধরে রেখেছিলেন তাদের চামড়া নষ্ট হয়ে গেছে।

পাইকারি চামড়া ব্যবসায়ী মুনতাজ বলেন, ‘এক লোক চামড়া দিয়াইছে। বর্তমান বাজার অনুযায়ী ৩০ হাজার টাকার মাল হইব। পাইকার দাম কইছে ১৫০০ টাকা। এই লোক রাগে মাল সব রাস্তায় ফালাইয়া দিয়া গেছে।’

মুনতাজ আরো বলেন, ‘দুই দিন আগের মাল। দাম বাড়ার আসায় রাখছিল। সব মাল নষ্ট হইয়া গেছে। এই মাল টাকা দিয়া কে কিনব?’

চামড়ার কম দামে রীতিমতো ক্ষুব্ধ এই ব্যবসায়ী। বলেন, ‘এক জোড়া চামড়ার জুতার দাম দুই হাজার টাকা। আর একটা চামড়ার দাম অহে না এক হাজার টাকা। এইডি কেমন ফাইজলামি?’

১৯৯৫ সালের পর দেশীয় চামড়ার বাজারে এত বড় আঘাত আসেনি বলে দাবি করেন অপর এক পাইকারি চামড়া ব্যবসায়ী দিদার। তিনি বলেন, ‘দাম না পায়া অনেকে চামড়া ফালাইয়া গেছে। অনেক চামড়া নষ্ট হইল। এগুলা তো আসলে চামড়া নষ্ট হইল না, দ্যাশের সম্পদ নষ্ট হইল।’

পস্তা বাজার থেকে পচে যাওয়া চামড়া আবর্জনা হিসেবে নিয়ে যেতে দেখা গেছে সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের।  ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিনষ্ট হওয়ার চামড়ার মূল্য লাখ টাকার বেশি।

Tags

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close