আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
জাতীয়স্লাইড

তিন প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন হাসিনা-মোদি

ওমেনআই ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনটি প্রকল্পের নির্মাণকাজের উদ্বোধন করবেন। প্রকল্পগুলো হলো— ভেড়ামারায় ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি বিষয়ক প্রকল্প, বাংলাদেশের কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলওয়ে অংশের সংস্কার এবং আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেল সংযোগ (বাংলাদেশ অংশ)। সোমবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দিল্লি থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসময় বলেন, ভারত থেকে বর্তমানে আমরা ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছি, আমরা আরও ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির উদ্যোগ নিয়েছি। দেশে বিদ্যুতের উৎপাদন ২০ হাজার মেগাওয়াটের মাইলফলক স্পর্শ করেছে।

পশ্চিমবঙ্গের (বাংলা) মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির প্রতিশ্রুত এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত বাংলাদেশকে দেয়ার ব্যাপারে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি আশা করবো ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এতে সম্মতি দিবেন।

তিনি বলেন, আমরা ১৩ হাজার ৬৯০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উদপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন আরও ৫৫টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছি। আমাদের উচ্চ প্রবৃদ্ধি ধরে রাখার জন্য আরও অনেক বিদ্যুৎ প্রয়োজন।এজন্য ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে আরও ৯ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করার উদ্যোগ নিচ্ছি।

রোববার এক সরকারি তথ্য বিবরণীতে বলা হয়, বাংলাদেশ রেলওয়ের কুলাউড়া-শাহবাজপুর অংশের সংস্কার এবং আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেলসংযোগ প্রকল্পের কাজে বাংলাদেশ ও ভারত যৌথভাবে অর্থায়ন করবে। ট্রান্স এশিয়া রেলওয়ে নেটওয়ার্কের অংশ হিসেবে কুলাউড়া-শাহবাজপুর অংশের সংস্কার প্রকল্প বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে রেলসংযোগ পুনঃস্থাপিত করবে। প্রকল্পের আওতায় প্রায় ৫৩ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেললাইন, সেতু ও কালভার্ট একাধিক স্টেশন ও অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে এবং স্থাপন করা হবে নন-ইন্টারলকড কালার লাইট সিগন্যাল-ব্যবস্থা।

তথ্য বিবরণীতে আরও বলা হয়, এই প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ৬৭৮ কোটি ৫০ লাখ ৭৯ হাজার টাকা। মোট ব্যয়ের ৫৫৫ কোটি ৯৮ লাখ ৭৬ হাজার টাকা ভারত সরকারের ঋণ। বাদ-বাকি ব্যয় বহন করবে বাংলাদেশ সরকার।

দ্বিতীয় প্রকল্পের আওতায় প্রায় ১০ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেললাইন, কালভার্ট, যাত্রী প্ল্যাটফর্ম, প্ল্যাটফর্ম ছাউনি, শুল্ক ও ইমিগ্রেশন ভবন ও রেস্ট হাউস নির্মাণ করা হবে। এতে আনুমানিক ব্যয় ধরা হয়েছে ২৪০ কোটি ৯০ লাখ ৬৩ হাজার টাকা। ভারতীয় মঞ্জুরি সহায়তায় এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে বলে জানানো হয়েছে।

পিডিবি সূত্র জানায়, স্বল্প মেয়াদে ৩০০ ও ২০০ মেগাওয়াট করে ভারতের দুটি কোম্পানির কাছ থেকে বিদ্যুৎ কেনা হচ্ছে। সরকার স্বল্প এবং দীর্ঘ দুই মেয়াদে বিদ্যুৎ ক্রয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। স্বল্প মেয়াদে ২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। দীর্ঘমেয়াদে ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০৩৩ সাল পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। ২০৩৩-এর ৩১ মে এই চক্তির মেয়াদ শেষ হবে।

মানবকণ্ঠ/অরণ্য সৌরভ

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close