আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
জাতীয়স্লাইড

সরকারের উন্নয়নে মঙ্গা শব্দটিই হারিয়ে গেছে: প্রধানমন্ত্রী

ওমেনআই ডেস্ক: উত্তরবঙ্গের অবহেলিত থাকার কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এক সময় উত্তরবঙ্গের বহু এলাকার মত গঙ্গাচড়াও মঙ্গা প্রবণ এলাকা ছিল। কিন্তু সরকারের পরিকল্পিত উন্নয়নে আজ আর মঙ্গা নেই। এই শব্দটিই যেন হারিয়ে গেছে। আওয়ামী লীগের শাসনেই দেশ থেকে মঙ্গা চির বিদায় নিয়েছে। রোববার বেলা ১২টার পর গণভবন থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে লালমনিরহাটের কাকিনা-মহিপুর এলাকায় তিস্তা নদীর ওপর নবনির্মিত ৮৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ‘গঙ্গাচড়া শেখ হাসিনা তিস্তা সেতু’ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার তিতাস নদীর উপর নির্মিত ‘শেখ হাসিনা তিতাস সেতু’–এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের সময় এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রংপুর দুর্ভিক্ষপীড়িত এলাকা। সেখানে সবসময় দুর্ভিক্ষ লেগে থাকত। ১৯৯৬ সালে যখন সরকারে আসি, বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করে। ২০০৮ সালে আমরা আবার জনগণের ভোটে ক্ষমতায় আসি। ২০০৮ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত আমরা ক্ষমতায় আছি। এখন কোথাও মঙ্গা নেই। আমরা রিসার্চ করে করে বহুমুখী ফসল উৎপাদন করতে শুরু করি। এই অঞ্চলে (উত্তরাঞ্চলে) আমরাই প্রথম ভুট্টা চাষের জন্যে প্রজেক্ট করি। আমি বলতে পারি, গত সাড়ে ৯ বছরে কেউ মঙ্গা শব্দটি শোনেনি। উত্তরবঙ্গের লোক মঙ্গা শব্দটি ভুলেই গেছে।’

দারিদ্র্যমুক্ত সমাজ গঠনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তিস্তা ও তিতাস এই দুটি সেতু নির্মাণের কারণে এসব এলাকায় মানুষের দারিদ্র্য হ্রাস পাবে, কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে, এলাকার সাধারণ মানুষের উন্নয়ন হবে।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর আপামর জনগোষ্ঠীর ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি। পরিবর্তন হয়েছিল মুষ্ঠিমেয় কিছু মানুষের ভাগ্যের, যারা সংবিধান লঙ্ঘন করেছিল তারাসহ কিছু মানুষের জীবনের উন্নয়ন হয়েছিল। সাধারণ মানুষের কথা কেউ ভাবেনি, তারা দারিদ্র্যসহ বিভিন্ন সমস্যায় নিমজ্জিত ছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রায় ছয় বছর পর আমি দেশে আসি। ১৯৭৫ সালের পর আমাকে দেশে আসতে দেওয়া হতো না। অনেক প্রতিবন্ধকতা ছিল। একপর্যায়ে একরকম জোরকরেই আমি দেশে ফিরেছি। এরপর সারাদেশ ঘুরেছি। ১৯৯৬ সালে সরকার গঠনের পর আমরা জাধারণ মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ শুরু করি। তখন থেকেই সাধারণ মানুষের উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।’

বাঞ্ছারামপুরের সেতুর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এই সেতু নিয়ে কয়েকটি উপজেলার মানুষের মধ্যে ঝগড়া ছিল। এরপর আমি সবাইকে ডাকলাম। ম্যাপ নিয়ে বসলাম। এরপর ডিজাইন চেঞ্জ করে দিয়ে আমি নতুন করে বললাম- সেতুর একটা অংশ বাঞ্ছারামপুর থেকে চলে যাবে মুরাদনগর, আরেকটা অংশ চলে যাবে হোমনায়। তাহলে সেতুটি দেখতেও অন্যরকম হবে, যা এখন ওয়াই সেতু নামে পরিচিতি পেয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপি আসলেই রেল লাইনগুলো বন্ধ হয়ে যায়। ক্ষমতায় বসে একে একে রেল লাইনগুলো বন্ধ করে দেয় তারা। তাদের সময়ে রেল লাইনগুলো ছিল অবহেলিত। আমরা ক্ষমতায় এসে আলাদা মন্ত্রণালয় করে, আলাদা বাজেট দিয়ে, সারা দেশের রেল যোগাযোগ বৃদ্ধি করেছি।’

মানবকণ্ঠ/অরণ্য সৌরভ

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close