আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
রাজনীতি

খালেদা জিয়ার ইফতার কর্মসূচি বর্জন

t2ওমেন আই: গণমাধ্যম সম্পাদকদের সম্মানে ইফতার আয়োজন সম্পন্ন করলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। আর এ কর্মসূচি বর্জন করেছে অনলাইন সংবাদকর্মীদের একাংশ।

গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। তবে এতে প্রথম সারির বেশকয়েকটি গণমাধ্যমের সম্পাদকরা উপস্থিত হননি।

জানা গেছে, প্রেস উইংয়ের অবহেলার কারণে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে দাওয়াত কার্ড পৌঁছেনি।

জানা গেছে, বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এবং ঢাকা টাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক ছাড়া অন্য কোনো অনলাইন পত্রিকার সম্পাদকের কাছে বিএনপি চেয়ারপারসনের আমন্ত্রণপত্র পৌঁছেনি। অথচ বিএনপি চেয়ারপারসন বা দলের কর্মসূচি নিয়মিতভাবে কাভার করে আরো বেশকয়েকটি অনলাইন পত্রিকা।

এ প্রসঙ্গে জাস্ট নিউজের বার্তা সম্পাদক মহিউদ্দিন খান মোহন ক্ষোভ প্রকাশ করে বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমরা গুরুত্ব দিয়ে বিএনপির সংবাদ প্রকাশ করি। কিন্তু আমাদের সম্পাদককে খালেদার ইফতার পার্টিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।’ বেগম খালেদা জিয়া যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন মহিউদ্দিন খান মোহন তার সহকারী প্রেসসচিবের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি বিএনপির সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক।

এদিকে রোববারের ইফতার পার্টি কাভার করতে হোটেল ওয়েস্টিনে যারা গিয়েছিলেন তাদের অনেকেই বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে। গণমাধ্যমের সম্পাদকদের সঙ্গে খালেদা জিয়ার ইফতার কর্মসূচি চললেও সম্পাদকের সঙ্গে আসা একজন সংবাদকর্মীকে প্রবেশে বাধা দেয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদকর্মীরা জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ের কর্মকর্তা মো. জসিম সাংবাদিকদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেছেন। এসময় দৈনিক যুগান্তরের একজন ফটো সাংবাদিককে হয়রানিও করা হয়। এছাড়াও যমুনা টেলিভিশন, ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন, একাত্তর টেলিভিশনসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে ফিরিয়ে দেয়া হয়। একটি প্রতিষ্ঠান থেকে দুইজনের বেশি সংবাদকর্মী বিএনপি চেয়ারপারসনের অনুষ্ঠান কাভার করা যাবে না বলে তখন জানান মো. জসিম।

এ সময় চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শাইরুল কবির খান বলেন, ‘বিডিনিউজ আর বাংলানিউজ ছাড়া অন্য কোনো অনলাইন পত্রিকার সম্পাদককে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।’

এ প্রতিবেদক বেগম খালেদা জিয়ার ইফতার কর্মসূচি কাভার করতে গেলেও জসিমের বাধার সম্মুখিন হতে হয়। অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন প্রেস উইং সদস্য শাইরুল কবির খানও।

প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেলের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, নিয়মিত রিপোর্টাররা প্রবেশের সুযোগ পাবে।’ তবে তিনি উপস্থিত না থাকায় অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশের সুযোগ হয়নি। একই কারণে আরো বেশ কয়েকজন নিয়মিত রিপোর্টারকে ফিরে যেতে হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে অনলাইন পত্রিকার রিপোর্টারদের একাংশ খালেদা জিয়ার ইফতার কর্মসূচি বর্জন করেন।

আজকের ইফতার পার্টিতে বাংলামেইল, বাংলানিউজ, আইএনবি, নেক্সট নিউজ, জি নিউজ, ব্রেকিং নিউজ, ঢাকা টাইমসের কোনো প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না।

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল নাইনের স্টাফ রিপোর্টার কায়সার রাহমানি। বিএনপি বিটের একজন নিয়মিত রিপোর্টার তিনি। বাংলামেইলের কাছে তার ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, ‘সাংবাদিকদের নিয়ে তাদের (বিএনপি) নিজস্ব কোনো নীতি থাকতেই পারে। বিষয়টি আগে থেকে জানানো হলে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হতো না।’

ঢাকা ৭ জুলাই (ওমেন আই) //এলএইচ//

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close