আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
অপরাধ

প্রেম করে বিয়ে করায় মেয়েকে খুন!

JEY-wmnওমেনআই:মা-বাবার অমতে ভালোবেসে অন্যজাতের এক যুবককে বিয়ে করেছিল মেয়ে। পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে নিপুন ছক কষে মেয়েকেই খুন করল পাষণ্ড মা-বাবা। লোহমর্ষক ঘটনাটি কোনো প্রত্যন্ত গ্রামে নয়, ভারতের রাজধানী দিল্লিতে।

পরিবারের হাতে খুন হওয়া যুবতী দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ শ্রী ভেঙ্কটেশ্বরের স্নাতকে চড়ান্ত বর্ষে পড়ছিলেন একুশ বছরের ভাবনা। দীর্ঘ দিন ধরেই অভিষেক শেঠ নামের এক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল তার। বছর চব্বিশের অভিষেক মন্ত্রিসভার সচিবালয়ে অ্যাসিস্টেন্ট প্রোগ্রামারের কাজ করেন। ভাবনা রাজস্থানের যাদব পরিবারের মেয়ে ছিলেন।

অভিষেকরা পাঞ্জাবি। অভিষেকের সঙ্গে সম্পর্ক প্রথম থেকেই মেনে নেয়নি ভাবনার মা-বাবা। গত ১২ নভেম্বর দিল্লির একটি মন্দিরে বিয়ে করেন অভিষেক-ভাবনা। বিয়ের খবরটি দিতেই অন্ধকার নেমে আসে ভাবনার জীবনে। মেয়েকে ফোনে কিছু না-বললেও ভাবনাকে শাস্তির পরিকল্পনা করেন তার মা-বাবা। স্থানীয় কংগ্রেস নেতা ও পেশায় ব্যবসায়ী ভাবনার বাবা জগমোহন ফোন করে মেয়েকে বাড়িতে ফিরে আসতে বলে।

বাবার ফোন পেয়ে বেশ স্বস্তিতেই ছেলেন ভাবনা। ভাবতেও পারেননি, এই বাড়ি ফেরাই তার অন্তিম পরিণতি। স্বামীকে নিয়েই তিনি মা-বাবার কাছে যান।

দিল্লি পুলিশ সূত্রের খবর, প্রথম দিন থেকেই দুজনের উপর শারীরিক ও মানসিকভাবে অকথ্য অত্যাচার শুরু করে ভাবনার পরিবার। কোনো ক্রমে পালিয়ে বাঁচেন দুজনে। এই ঘটনার পর ভাবনা ও অভিষেকের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেয় ভাবনার পরিবার। এবং দ্বিতীয়বার বাড়ি ফিরতে বলে মেয়েকে। তাদের খুব ধুমধাম করে বিয়ে দেওয়ারও মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেয় ভাবনার বাবা। মা-বাবার কথা ভেবে বাড়ি ফেরেন ভাবনা। এরপরই একটি ঘরে দরজা বন্ধ করে মেয়েকে খুন করে মা, বাবা ও কাকা।
পুলিশ জানিয়েছে, ভাবনার পরিবার দক্ষিণ-পশ্চিম দিল্লির ভারত বিহারের ডি-ব্লকের বাসিন্দা।

অভিষেকের এফআইআর-এর ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই খুন হওয়া তরুণীর মা-বাবাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে খুনের মূল পরিকল্পনাটি ছিল ভাবনার কাকার। ঘটনার পর থেকেই সে পলাতক। তার খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে দিল্লি পুলিশ। পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে মেয়েকে খুনের কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে ভাবনার মা-বাবা।

তথ্যসূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

ঢাকা, ২০ নভেম্বর (ওমেনআই)/এসএল/

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close