আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
অপরাধ

সাগর-রুনি হত্যা: তানভীরের জামিন

runi-wmnওমেনআই:রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের নিজ বাড়িতে খুন হওয়া সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনী হত্যা মামলায় আটক মো. তানভীর রহমানকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছে হাইকোর্ট।

বিচারপতি নিজামুল হক ও বিচারপতি নুরুল হুদা জায়গিরদারের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার তাকে জামিন দিয়ে আদেশ দেয়।

আদালতে তানভীরের পক্ষে শুনানি করেন এ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ।

এর আগে, গত ১৩ জুলাই রবিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় কমিশনের চেয়ারম্যানের পক্ষ থেকে তানভীরের জামিন চেয়ে একটি রিট দায়ের করা হয়।

এরপর বেশ কয়েকবার তার জামিন নামঞ্জুর করে দেয় হাইকোর্ট।

স্বরাষ্ট্র সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, র‌্যাবের মহাপরিচালক, র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার অতিরিক্ত মহাপরিচালক, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাবের জ্যেষ্ঠ সহকারি মহাপরিচালক, শেরে বাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, কাশিমপুর কারাগারের জেলার, গাজীপুরের জেলা প্রশাসককে রিটে বিবাদী করা হয়।

রিটে তানভীর রহমানের বেআইনী আটকাদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, মর্মে রুল চাওয়া হয়। পাশাপাশি বেআইনীভাবে আটক করা হয়নি নিশ্চিত হতে তাকে কেন হাইকোর্টে হাজির করা হবে না, মর্মেও রুল চাওয়া হয়।

আবেদনের পরে বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানিও হয়।

আদালত রিটের শুনানি মুলতবি করে নিম্ন আদালতের জামিন না মঞ্জুরের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের জামিনের নিয়মিত বেঞ্চে আবেদন করার কথা বলে আবেদনটি নথিতে রেখে দেন।

আবেদনকারীর আইনজীবী ফাওজিয়া করিম ফিরোজ সাংবাদিকদের বলেন, নিম্ন আদালত সর্বশেষ গত ২৬ জুন আমাদের জামিন আবেদন খারিজ করে তানভীরের জামিন নামঞ্জুর করে দেন। ওই আদেশের বিরুদ্ধে আমরা এখন হাইকোর্টের জামিনের বেঞ্চে আবেদন করব। জামিন না পেলে সেই আদেশের অনুলিপি নিয়ে এই আদালতে আসব।

সাগর-রুনীর ‘কথিত’ পারিবারিক বন্ধু তানভীর রহমান স্কলাসটিকা স্কুলের ডেপুটি ম্যানেজার ছিলেন। আটক করে পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করলে ২০১২ সালের ১০ অক্টোবর বিচারক তাকে ৭ দিনের রিমান্ডে পাঠায়। এরপর থেকে তিনি কারাগারেই রয়েছেন।

তবে আইনজীবীর দাবি, তাকে ওই বছরের ১ অক্টোবর আটক করা হয়।

আটক হওয়ার পর তানভীর নিম্ন আদালতে জামিন আবেদন করেন। তা খারিজের পর হাইকোর্টে আবেদন করলে ২০১৩ সালের ২ জুন হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ উপস্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে।

পরে একটি অবকাশকালীন বেঞ্চ স্বল্প সময়ের জন্য জামিন দিয়ে তা নিয়মিত বেঞ্চে বর্ধিত করতে বলে। আদেশের অনুলিপি না পাওয়ায় সেই আদেশে কারাগার থেকে বের হতে পারেননি তানভীর। এরপর নিয়মিত বেঞ্চও জামিন বাড়ায়নি।

পরে নিম্ন আদালতে আবার খারিজ হওয়ার পর হাইকোর্টে এলে গত এপ্রিলে তা আবার উপস্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ হয়।

ছেলের বিনা-বিচারে আটকের বিরুদ্ধে সহায়তা চেয়ে গত ৯ ফেব্রুয়ারি তানভীরের বাবা মাহবুবুর রহমান জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে আবেদন করেন। সেই আবেদন বিবেচনায় নিয়ে কমিশন ও কমিশনের চেয়ারম্যান বাদী হয়ে এই রিট করেন।

ঘটনায় তানভীরের সম্পৃক্ততার বিবরণ চেয়ে ৭দিনের মধ্যে একটি প্রাথমিক প্রতিবেদন দিতে র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার অতিরিক্ত মহাপরিচালক, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাবের জ্যেষ্ঠ সহকারী মহাপরিচালক, শেরে বাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার প্রতি নির্দেশনা চাওয়া হয়।

পাশাপাশি দণ্ডবিধির ৩০২/৩৪ ধারায় তানভীরের অন্তর্বর্তীকালীন জামিনও চাওয়া হয়।

ফাওজিয়া করিম ফিরোজ বলেন, আমাদের আদালতে এ ধরনের আদেশের দৃষ্টান্ত নেই। তবে ভারতীয় আদালতে এ ধরনের রায়ের বহু দৃষ্টান্ত রয়েছে।

ঢাকা, ০২ ডিসেম্বর (ওমেনআই)/এসএল/

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close