আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
সাহিত্য

নোবেল পাওয়া ৫ সাহিত্যিক

nobel 7.1.15ওমেনআই:নোবেল পুরস্কারে সর্বশেষ অন্তর্ভুক্ত বিভাগ সাহিত্য। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নোবেল পুরস্কা পাওয়া জীবনের শেষ প্রান্তে এসে জোটে। তবে এমনও কয়েকজন নোবেলজয়ী আছেন যারা বয়সের দিক থেকে অন্যদের তুলনায় বেশ আগেই এই পুরস্কার পেয়েছেন। এখানে থাকছে পঞ্চাশ বছর বয়সের আগেই নোবেল পুরস্কার পাওয়া ৫ সাহিত্যিকের কথা।

জোসেফ রুডইয়ার্ড কিপলিং
রুডইয়ার্ড কিপলিং এর জন্ম ১৮৬৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর, তৎকালীন ব্রিটিশ ই-ইন্ডিয়ার বোম্বে শহরে। তিনি পরিবারের সঙ্গে পাঁচ বছর বয়সে ভারত ছেড়ে ইংল্যান্ড চলে যান। কিপলিং ছিলেন একাধারে জনপ্রিয় ইংরেজ ঔপন্যাসিক, গল্পকার, কবি ও সাংবাদিক। লিখেছেন ভ্রমণ এবং বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীও।

তাঁর লেখা বিখ্যাত গল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম হল- জঙ্গল বুক, কিম, দ্য ম্যান হু উড বি কিং, ইফ ইত্যাদি। আর উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থগুলো মান্দালয় ও গঙ্গা দিন। সাহিত্যে অসামান্য অবদানের জন্য রুডইয়ার্ড কিপলিং মাত্র ৪২ বছর বয়সে, ১৯০৭ সালে নোবেল পুরস্কার পান। একই সঙ্গে তিনি ইংরেজি ভাষার সাহিত্যিক হিসেবে নোবেল পুরস্কার পাওয়া প্রথম লেখক। তিনি ১৯৩৬ সালের ১৮ জানুয়ারি মারা যান।

আলব্যের কামু
সাহিত্যে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবার জন্য ১৯৫৭ সালে নোবেল পুরস্কার পান ফরাসি বংশোদ্ভূত আলজেরীয় সাহিত্যিক আলব্যের কামু। কিপলিং এর পর দ্বিতীয় কমবয়েসী লেখক হিসেবে আলব্যের কামু মাত্র ৪৪ বছর বয়সে নোবেল পান।

আলব্যের কামুর জন্ম ৭ই নভেম্বর ১৯১৩। তিনি একাধারে সাংবাদিক, লেখক এবং দার্শনিক ছিলেন। এ্যাথিক্স, পলিটিক্স, লাভ এবং জাস্টিস ইত্যাদি তাঁর আগ্রহের বিষয় ছিল। এই লেখক ১৯৬০ সালের ৪ জানুয়ারি এক মটর দুর্ঘটনায় মাত্র ৪৬ বছর বয়সে মারা যান।

তাঁর উল্লেখযোগ্য ছোটগল্প- দ্য স্ট্রেঞ্জার (১৯৪২), দ্য প্লেগ (১৯৪৭), দ্য ফল (১৯৫৬), দ্য সাইল্যান্ট ম্যান ও দ্য গেস্ট। কামুর উল্লেখযোগ্য নন ফিকশন- দ্য মিথ অব সিসিফাস এবং দ্য রেবেল। মৃত্যুর পর প্রকাশিত বই -অ্যা হ্যাপি ডেথ (১৯৭০) এবং ১৯৯৫ সালে প্রকাশিত হয় তাঁর অসমাপ্ত নভেল দ্য ফার্স্ট ম্যান।

হ্যারি সিনক্লেয়ার লুইস
সিনক্লেয়ার লুইস মাত্র ৪৫ বছর বয়সে ১৯৩০ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান। লুইস প্রথম আমেরিকান ঔপন্যাসিক, নাট্যকার এবং ছোটগল্প লেখক যিনি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী হন।

হ্যারি সিনক্লেয়ার লুইস ১৮৮৫ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি সাউক সেন্টার, মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যে জন্মগ্রহণ করেন। সিনক্লেয়ার ১৯০৭ সালে ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।

সিনক্লেয়ার লুইসের প্রথম বই ‘আওয়ার মিস্টার রেন'(১৯১৪)ও দ্বিতীয় বই ‘মেইন স্ট্রিট’ (১৯২০)। তাঁর অন্যান্য উল্লেখযোগ্য বইয়ের মধ্যে রয়েছে, ব্যাবিট (১৯২২), অ্যারোজস্মিথ (১৯২৫), ডডসওর্থ (১৯২৯) ইত্যাদি। ১৯৫১ সালের ১০ই জানুয়ারি সিনক্লেয়ার রোমে মৃত্যুবরণ করেন।

সিগ্রিদ উন্দসেথ
নরওয়েজিয়ান ঔপন্যাসিক সিগ্রিদ উন্দসেথ সাহিত্যে অসামান্য কৃতীত্ব রাখবার জন্য ১৯২৮ সালে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন মাত্র ৪৬ বছর বয়সে। সিগ্রিদ উন্দসেথের সর্বাধিক পঠিত উপন্যাস হল ‘ক্রিস্টিন ল্যাভরানসডেটার’।

উন্দসেথ নোবেল পুরস্কার পান মূলত ক্রিস্টিন ল্যাভরানসডেটার এবং দ্য মাস্টার অফ হাস্টভিকেন উপন্যাস দুটির জন্য। উন্দসেথের প্রথম উপন্যাস গানার্স ডটার(১৯০৯)।

বিশ্বযুদ্ধ বন্ধের লক্ষ্যে তিনি তাঁর নোবেল পুরস্কারটি ডোনেট করে দিয়েছিলেন। ১৯৪৯ সালের ১০ জানুয়ারি, ৬৭ বছর বয়সে নরওয়েতে মারা যান নোবেলজয়ী এই ঔপন্যাসিক।

পার্ল এস. বাক
১৯৩৮ সালে সাহিত্যে নোবেল জয় করেন আমেরিকান লেখক এবং ঔপন্যাসিক পার্ল এস. বাক ৪৬ বছর বয়সে। তাঁর জন্ম ১৮৯২ সালের ২৬ জুন আমেরিকার ওয়েস্ট ভার্জিনিয়াতে। ১৯৩২ সালে তিনি পুলিৎজার পুরস্কার পান।

তিনি তাঁর নোবেল স্পিচে জানান, জন্মগতভাবে তিনি একজন আমেরিকান হলেও গল্প বলার বা লেখার প্রাথমিক ধারণা তিনি চীন থেকে অর্জন করেছেন। ১৯১৪ সালে তিনি তাঁর দ্য গুড আর্থ উপন্যাসটি লিখেন। তিনি ১৯৭৩ সালের ৬ মার্চ ৮০ বছর বয়সে পার্ল এস. বাকের মৃত্যু হয়।

ঢাকা, ০৭ জানুয়ারি (ওমেনআই)/এসএল/

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

Close
Back to top button
Close
Close