আমাদের নুতন ওয়েবসাইট www.womeneye24.com চালু হয়েছে। নুতন সাইট যাবার জন্য এখানে ক্লিক করুন
সারাদেশ

শুরু হলো একুশে বইমেলা

Boimela-Ekushe 1.2.15ওমেনআই: আজ থেকে শুরু হচ্ছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০১৫ ও আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন। বিকেল তিনটায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বইমেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। এরপর সর্ব সাধারণের জন্য বইমেলা উন্মুক্ত করে দেয়া হবে ।

বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের জন্য ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বাংলা একাডেমি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. রনজিৎ কুমার বিশ্বাস। স্বাগত বক্তব্য রাখবেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান।

অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনের প্রতিনিধিদের মধ্যে থেকে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন জার্মানির সাহিত্যিক হান্স হার্ডার, ফরাসি লেখক ফ্রাঁন্স ভট্টাচার্য, বেলজিয়ামের সাহিত্যিক ফাদার দ্যতিয়েন এবং বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য , গবেষক ও ভাষাবিদ ড. পবিত্র সরকার। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করবেন বাংলা একাডেমির সভাপতি প্রফেসর এমিরিটাস আনিসুজ্জামান।

অমর একুশে গ্রন্থমেলা ও সাহিত্য সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার-২০১৪ দেয়া হবে।

গত বছরের মত এবারো বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ফেব্রুয়ারি মাস জুড়ে বইমেলা চলবে। মেলার সময় সরকারি ছুটির দিনগুলোতে সকাল ১১টা থেকে রাত সাড়ে আটটা। সপ্তাহের অন্যান্য দিন দুপুর তিনটা থেকে রাত সাড়ে আটটা। বইমেলায় বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গনে ৯২টি প্রতিষ্ঠানের ১২৮টি ইউনিট বসবে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দুইশ’ ৫৯ টি প্রতিষ্ঠানকে চারশ’ ৩৭ টি ইউনিট বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে।

বর্ধমান ভবনের পশ্চিম বেদিতে এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলা একাডেমির তথ্য কেন্দ্র থাকবে। বর্ধমান ভবনের উত্তর পাশে বরাবরের মতই থাকছে মিডিয়া সেন্টার। প্রতিবারের মত এ বছরো নজরুল মঞ্চে নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। নজরুল মঞ্চকে ঘিরে শিশু কর্ণার করা হয়েছে। পাশাপাশি অমর একুশে গ্রন্থমেলার উভয় অংশে বিনামূল্যে ওয়াইফাই ইন্টারনেট সুবিধা তো থাকছেই।

বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান দুই জাগায়ই লেখক কুঞ্জ থাকবে। ৭২টি লিটল ম্যাগাজিনকে বর্ধমান ভবনের দক্ষিণ পাশে জায়গা দেয়া হয়েছে। এছাড়া মেলার অবকাঠামোতে নান্দনিকতা আনা হয়েছে। আলোকসজ্জ্বা, ফুলের বাগান ও বসার জায়গা রাখা হয়েছে। গ্রন্থমেলার প্রবেশপথে আর্চওয়ে দিয়ে মেলায় প্রবেশের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। মেলার সার্বিক নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে বাংলাদেশ পুলিশ, র‌্যাব, আনসার, বিজিবি ও গোয়েন্দা সংস্থার নিরাপত্তাকর্মীরা। সেইসঙ্গে মেলা প্রাঙ্গণে থাকবে ৭৫ টি ক্লোজসার্কিট (সিসি) ক্যামেরা। মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রবেশের একটি পথ এবং টিএসসি ও ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউশন দিয়ে মেলা থেকে বের হওয়ার দুইটি পথ থাকবে। গ্রন্থমেলা সম্পূর্ণ পলিথিন ও ধূমপানমুক্ত থাকবে। দুইটি স্টল-ওয়ারি একটি অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র এবং প্রশিক্ষিত অগ্নিনির্বাপক কর্মী থাকবেন। ইতোমধ্যে ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে স্টলের কর্মীদের এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় অংশগ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের ২০১৪ সালে প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্য থেকে গুণগতমান বিচারে সেরা গ্রন্থের জন্য প্রকাশককে ‘চিত্তরঞ্জন সাহা স্মৃতি পুরস্কার’ এবং ২০১৪ গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্য থেকে শৈল্পিক বিচারে সেরা গ্রন্থ প্রকাশের জন্য তিনটি প্রতিষ্ঠানকে ‘মুনীর চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার’ দেয়া হবে।

এছাড়া ২০১৪ সালে প্রকাশিত শিশুতোষ গ্রন্থের মধ্য থেকে গুণগতমান বিচারে সর্বাধিক গ্রন্থের জন্য একটি প্রতিষ্ঠানকে প্রথমবারের মতো ‘রোকনুজ্জামান খান দাদাভাই স্মৃতি পুরস্কার’ এবং এ বছরের মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের মধ্য থেকে স্টলের নান্দনিক সাজসজ্জায় শ্রেষ্ঠ বিবেচিত প্রতিষ্ঠানকে ‘কাইয়ুম চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার’ দেয়া হবে। মাসব্যাপী গ্রন্থমেলায় এবার চার দিন শিশুপ্রহর ঘোষণা করা হবে। এবারের গ্রন্থমেলায় বাংলা একাডেমি প্রকাশিত ১০০টির বেশি নতুন বই পাওয়া যাবে।

ঢাকা ০১ ফেব্রুয়ারি (ওমেনআই)/এসএল/

আরও পড়ুন

Back to top button
Close
Close